Comjagat.com-The first IT magazine in Bangladesh
  • ভাষা:
  • English
  • বাংলা
হোম > বাংলা কমপিউটিং ও বাংলা ভাষা
লেখক পরিচিতি
লেখকের নাম: সৈয়দ হাসান মাহমুদ
মোট লেখা:৫৪
লেখকের নাম: সৈয়দ হাসান মাহমুদ
মোট লেখা:১৪৪
লেখা সম্পর্কিত
পাবলিশ:
২০০৮ - ফেব্রুয়ারী
তথ্যসূত্র:
কমপিউটার জগৎ
লেখার ধরণ:
কমপিউটারে  বাংলা ব্যবহার
তথ্যসূত্র:
প্রচ্ছদ প্রতিবেদন
ভাষা:
বাংলা
স্বত্ত্ব:
কমপিউটার জগৎ
বাংলা কমপিউটিং ও বাংলা ভাষা
ফেব্রুয়ারি ভাষার্স মাস৷ বিশ্ব দনির্বাহীরে বাংলা ভাষাকে প্রতিষ্ঠা করার্স পাশাপাশি বাঙালি জাতির্স মাথা তুলে দাঁড়ানোর্স মাস৷ ফেব্রুয়ারি বাঙালি চেতনার্স বহিঃপ্রকাশের্স মাস৷ ১৯৫২ সালের্স এই মাসে র্সক্ত দিয়ে বাংলা ভাষাকে আপন মর্যাদা প্রতিষ্ঠা করেছে এ দেশের্স মানুষ৷ ভাষার্স জন্য জীবনদানের্স এটাই সর্বপ্রথম ঘটনা৷ তাই প্রতি বছর্স একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে৷ আজ সবার্স বিশ্বাস, বাংলায় কমপিউটিংয়ের্স মাধ্যমে বাংলা ভাষাকে বিশ্ববাসীর্স সামনে এক অনন্য উচ্চতায় নেয়া সম্ভব৷ তথ্যপ্রযুক্তিতে অবদান রাখা অনেক বাঙালির্স নির্সলস প্রচেষ্টায় বাংলা কমপিউটিং আজ বহুদূর্স এগিয়েছে৷ অবদান রেখে চলেছে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানও৷ বাংলা কমপিউটিংয়ের্স সামগ্রিক বিষয় তুলে ধরে এবারের্স প্রচ্ছদ প্রতিবেদন সাজিয়েছেন সৈয়দ হাসান মাহমুদ ও সৈয়দ হোসেন মাহমুদ৷



বাংলা সাহিত্যের্স র্সয়েছে এক সমৃদ্ধ সম্ভার্স৷ র্সবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের্স বাংলা সাহিত্যে নোবেল পাওয়া এক অনন্য অর্জন৷ বাংলা ভাষা হচ্ছে এমন একটি সমৃদ্ধ ভাষা যার্স মাধ্যমে প্রকাশ করা যায় না এমন কিছুই নেই৷ বরং কোনো কোনো ক্ষেত্রে বাংলা ভাষার্স প্রকাশ-ক্ষমতা আন্তর্জাতিক ভাষা ইংরেজিকেও ছাপিয়ে গেছে৷ তবে একথা ঠিক বাংলা ভাষা নিয়ে অনেক সময় আমরা হীনম্মন্যতা ও সঙ্কীর্ণতায় ভুগি৷ এর্স যথার্থ চর্চা আমাদের্স মাঝে নেই৷ সুখের্স কথা, সময়ের্স সাথে আমাদের্স ভুল ধীরে ধীরে ভাঙতে শুরু করেছে৷ তাই বাংলা ভাষা সময়ের্স সাথে সমৃদ্ধ থেকে সমৃদ্ধতর্স পর্যায়ে উঠে আসছে৷ বাংলা ভাষা যে তথ্যপ্রযুক্তিতে যথার্থভাবেই প্রয়োগযোগ্য একটি ভাষা, সে বিশ্বাসের্স পার্সদমাত্রা ধীরে ধীরে আমাদের্স মধ্যে উপরের্স দিকে উঠছে৷ এখন আমরা উপলব্ধি কর্মকর্তাতে পার্সছি বিশ্বায়নের্স এ যুগে বাংলাকে সারা বিশ্বে আমরা ছড়িয়ে দিতে পারি কমপিউটার্স প্রযুক্তি ও ইন্টার্সনেটে বাংলা ভাষার্স পূর্ণাঙ্গ ব্যবহারের্স মাধ্যমে৷ এখন ইউনিকোডের্স বদৌলতে তেমনটি কঠিন কোনো কাজ নয়৷ দুঃসাধ্য কিছু নয়৷ বর্তমানে বাংলা ভাষায় কমপিউটিং নিয়ে অনেক প্রতিষ্ঠান ও স্বেচ্ছাসেবী দল কাজ কর্মকর্তাছে৷ এদের্স মধ্যে অনেকগুলো গবেষণা ও প্রজেক্ট সম্পন্ন হয়েছে যার্স প্রয়োগ সামান্য হলেও দেখা যাচ্ছে৷

ইউনিকোড ও বাংলা

সর্বপ্রথম ম্যাকিনটোশ কমপিউটার্সই বিশ্বের্স বিভিন্ন ভাষায় মুদ্রণ ও লেখালেখির্স জন্য পূর্ণাঙ্গ সুযোগ সৃষ্টি করে৷ কমপিউটারে বাংলা লেখালেখির্স কাজের্স হাতেখড়িও হয়েছে এই ম্যাকিনটোশ কমপিউটার্স দিয়ে৷ কমপিউটারে বাংলার্স আনুষ্ঠানিক প্রবেশ ১৯৮৬ সালে শহীদ লিপির্স মধ্য দিয়ে৷ যার্স উদ্ভাবক ছিলেন ড. সাইফ-উদ দোহা শহীদ৷ এর্সপর্স ১৯৮৭ সালে মোস্তাফা জব্বার্স প্রথম কমপিউটারে বাংলায় কম্পোজ করে তার্স সাপ্তাহিক পত্রিকা আনন্দপত্র প্রকাশ কনে৷ এটি প্রকাশ করা হয়েছিল সৈয়দ মাইনুল হাসানের্স মাইনুললিপি ও কলকাতার্স একটি প্রতিষ্ঠারে তৈরি বঙ্কিম ফন্ট ব্যবহার্স করে। পর্সবর্তীতে ১৯৮৮ সালের্স ১৬ ডিসেম্বর্স সৃষ্টি হয় বিজয় বাংলা সফটওয়্যার্স, যা উইন্ডোজে কাজ কর্মকর্তাতো এবং এটি ধীরে ধীরে অন্য বাংলা লেখার্স সফটওয়্যার্সগুলোর্স (যেমন, শহীদলিপি, মাইনুললিপি ও মাহমুদ হোসেন র্সতনের্স উদয়ন লিপি ইত্যাদি) জায়গা দখল করে নিতে থাকে৷ এছাড়া কমপিউটারে বাংলার্স প্রচলনে অনেক গুণীজনের্স অবদানও উল্লেখ্যযোগ্য৷ এদের্স মধ্যে আছেন ড: মুহম্মদ জাফর্স ইকবাল, ড: হেমায়েত হোসেন, মুহম্মদ শামসুল হক ও গোলাম ফারুক আহমেদ৷ তাছাড়া প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের্স কমিপউটার্স বিজ্ঞান বিভাগ, অনির্বাণ গ্রুপ, প্রশিকাশব্দ, সেইফওয়ার্কস, লেখনীর্স নির্মাতা প্রতিষ্ঠান কমপিউটার্স ভিলেজ, প্রবর্তন কী-বোর্ডের্স লে-আউট প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান কমপিউটার্স সার্ভিসেস ইত্যাদি প্রতিষ্ঠানগুলো বিভিন্ন পর্যায়ে মূল্যবান অবদান রেখেছে৷

ধীরে ধীরে প্রযুক্তির্স ক্ষেত্র সম্প্রসারিত হতে থাকে, তখন এক কমপিউটার্স থেকে ফাইল অন্য কমপিউটারে নেয়া, মেইল করা ইত্যাদি বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠতে থাকে৷ কিন্তু তখন সমস্যা ছিল, কেউ তার্স কমপিউটারের্স বাংলা ফাইল অন্য কমপিউটারে পড়তে গিয়ে সমস্যায় পড়তেন৷ এর্স কার্সণ হচ্ছে, আসকি কোডে বাংলা বর্ণের্স অনুপস্থিতি৷ তখন যে ফন্টে বাংলা ডকুমেন্টটি লেখা হতো, অন্য কমপিউটারে সেই ফন্ট না থাকলে ডকুমেন্টের্স লেখা পড়া যেত না৷ তখন এমন একটি ব্যবস্থার্স দর্সকার্স হয়, যা দিয়ে ভাষার্স এমন একটি নির্দিষ্ট গঠন তৈরি করা যাবে, যা সব কমপিউটার্স একই হবে৷ শুধু বাংলা ভাষায়ই নয় অন্যান্য অনেক ভাষায় কমপিউটিংয়ের্স এই সমস্যা থেকে উত্তর্সণের্স জন্য তৈরি করা হয় ইউনিকোড সিস্টেম৷ ২০০১ সালে ইউনিকোড কনসোর্টিয়াম (www.unicode.org) এবং ইন্টার্সন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর্স স্ট্যান্ডার্ডাইজেশন (www.iso.org)-এর্সযৌথ প্রয়াসে ইউনিকোড ৩.০ সংস্কর্সণে প্রথম বাংলা ভাষা সংযুক্ত হয়৷ পরে ২০০৫ সালে ইউনিকোড ৪.১ সংস্কর্সণটিতে আগের্স সংস্কর্সণে বাংলা লেখার্স সমস্যাগুলোর্স সমাধান করে তা আরো উন্নত করা হয়৷ লক্ষ করে থাকবেন, পুর্সনো সিস্টেমে কমপিউটারে বাংলা লেখার্স সময় কমপিউটার্স তার্স নিচে লাল দাগ দিতো৷ এর্স অর্থ হচ্ছে, আপনি ভুল টাইপ কর্মকর্তাছেন৷ বাংলা লেখার্স অক্ষর্সগুলো কমপিউটার্স ঠিকমতো বুঝতে পার্সতো না৷ কিন্তু ইউনিকোড সমর্থিত কোনো ফন্ট দিয়ে যদি বাংলা লিখেন, তবে দেখবেন তাতে লাল কালির্স দাগ পড়ে না৷ অর্থাত্ কমপিউটার্স সঠিকভাবে তা বুঝতে পেরেছে৷ এটি সম্ভব হয়েছে ইউনিকোডে বাংলা ভাষা সংযোজনের্স মাধ্যমে৷

বর্তমানে সব বাংলা সফটওয়্যার্স ইউনিকোড মানানসই করে বানানো হচ্ছে৷ এসব সফটওয়্যার্স বানানোর্স প্রকল্পের্স সাথে জড়িত প্রতিষ্ঠানগুলোর্স সাথে এবং এদের্স সফল প্রজেক্টগুলোর্স সাথে আপনাদের্স পরিচয় করিয়ে দেয়ার্স প্রয়াস পাবো৷

আনন্দ কমপিউটার্স



বাংলা কমপিউটিংয়ে এ প্রতিষ্ঠানের্স অগ্রণী ভূমিকা অনস্বীকার্য৷ এর্স কার্সণ হিসেবে বলা যায়, এদের্স বিজয় বাংলা সফটওয়্যারের্স কথা৷ বর্তমানে দেশের্স প্রায় ৯৯ শতাংশ পত্রিকা প্রকাশিত হয় বিজয় কী-বোর্ডে এবং পশ্চিমবঙ্গেও গত দশ বছর্স ধরে বিজয় কী বোর্ড ব্যবহার্স করা হচ্ছে৷ সেখানে এ ব্যবহারের্স হার্স প্রায় ৮০ শতাংশ৷ এছাড়া আসামেও বিজয় কী-বোর্ড ব্যবহার্স হচ্ছে৷ বিজয় প্রসঙ্গে মোস্তাফা জব্বার্স বললেন, ১৯৮৭-১৯৯৩ সাল পর্যন্ত শুধু ম্যাকিনটশভিত্তিক ছিল বিজয় কী বোর্ড৷ ১৯৯৩ সালের্স ২৬ মার্চ উইন্ডোজভিত্তিক বিজয় কী-বোর্ড বাজারে আসে৷ পরে উইন্ডোজ ১৯৯৪ প্রকাশের্স পর্স বিজয় কী-বোর্ডের্স নতুন সংস্কর্সণ রিলিজ করা হয়, যা বাজারে বিজয় ৯৯ নামে বাজারে আসে৷ বিজয় ৯৯ ভার্সনটিই প্রথম পশ্চিমবঙ্গে বাজার্সজাত করা হয়৷ বিজয় ৯৯-এর্স পর্স ধারাবাহিকভাবে ২০০০, ২০০১, ২০০৩ সালে বিজয় কী-বোর্ড আপগ্রেড করা হয়৷ ২০০৪ সালে আমরা মনে করি শুধু আসকিভিত্তিক কী-বোর্ড আমাদের্স জন্য আগামী দিনের্স সমাধান নয়৷ কার্সণ, বিজয়কে ইউনিকোড কম্প্যাটিবল কর্মকর্তাতে হবে৷ ২০০৫ সালের্স শুরুতেই ইউনিকোড কম্প্যাটিবল বিজয় একুশে রিলিজ করা হয়৷

বর্তমানে বিজয় একুশে সুবর্ণ সংস্কর্সণ ২০০৭ ও বিজয় বায়ান্ন হচ্ছে এই প্রতিষ্ঠানের্স অন্যতম পণ্য, তবে বিজয় একুশেকে এরা তাদের্স সেরা পণ্য হিসেবে গণ্য করে৷ তাহলে আসুন দেখা যাক, কী কী বৈশিষ্ট্যের্স জন্য বিজয় একুশকে এরা এত মার্যাদা দিচ্ছে৷ বিজয় একুশে ২০০৭-এর্স বৈশিষ্ট্য

এনকোডিং সাপোর্ট :

বিজয় একুশে সুবর্ণ সংস্কর্সণ ২০০৭-এর্স উইন্ডোজ সংস্কর্সণটি অধিকতর্স সুবিধাসম্বলিত পূর্ণাঙ্গ বাংলা সফটওয়্যার্স৷ নতুন এই সংস্কর্সণটিতে প্রচলিত প্রায় সব এনকোডিং ব্যবহার্স করে বাংলা লেখার্স পাশাপাশি সহজে বাংলা লেখার্স বিভিন্ন অপশন র্সয়েছে৷ এতে র্সয়েছে বিজয় ক্লাসিক, বিজয় সাবরিনা, বিজয় ক্লাসিক গোল্ড, ইউনিকোড (কাস্টমাইজড ও স্ট্যান্ডার্ড) এই পাঁচ ধারার্স এনকোডিং দিয়ে বাংলা লেখার্স সুবিধা৷

ক্লাসিক অপশন :

এতে র্সয়েছে ১৯৯৩ সালে প্রচলিত ও ২০০৭ সাল পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে পরিমার্জিত বিজয় আসকি বা বিজয় ক্লাসিক কোডে লেখার্স সুবিধা৷ এতে কোনো বাংলা বর্ণ বা যুক্তাক্ষর্স এক্সেস, কোয়ার্ক এক্সপ্রেস, এইচপি প্রিন্টার্স, অন্য কোনো পোস্টস্ক্রিপ্ট প্রিন্টার্স বা ইমেজসেটারে ভাঙে না, মুছে যায় না বা বদলায় না৷ এর্স সাহায্যে ই-মেইল বা ইন্টার্সনেটেও বাংলা ব্যবহার্স সহজ হবে৷

সাবরিনা অপশন :

এই অপশনের্স সাহায্যে বিজয়ের্স ক্লাসিক মোডে পাঠ্যপুস্তকের্স ফন্ট আরো ভালো ও নির্ভুলভাবে লেখা যাবে৷

ক্লাসিক গোল্ড অপশন :

এই অপশনের্স ফলে যেসব অ্যাপ্লিকেশনে ইউনিকোড ব্যবহার্স করা যায়, কিন্তু বাংলা ভাষা ব্যবহার্স করা যায় না, তাতে ইউনিকোডের্স বর্ণরূপ বা ফটোটাইপসেটারের্স চেয়েও ভালো ও ত্রুটিহীন বাংলা হর্সফ পাওয়া যাবে৷ এর্স ফলে উইন্ডোজের্স অ্যাপ্লিকেশন ফাইল কোনো ধর্সনের্স কনভার্ট করা ছাড়াই ফর্সমেটিংসহ সরাসরি ম্যাকে খোলা ও সম্পাদনা করা যায়৷ একই ফন্টে বাংলা ও ইংরেজি লিখতে কোনো সমস্যা হবে না এবং ফন্ট বদল কর্মকর্তালে লেখার্স ওপর্স কোনো খারাপ প্রভাব পড়বে না৷

ইউনিকোড অপশন :

এটি পুরোপুরি ইউনিকোড সাপোর্টেড হওয়ায় মাইক্রোসফটের্স অফিস ২০০৭-এর্স সাথে ভালো কাজ কর্মকর্তাবে৷ এর্স আগে ওয়ার্ড ২০০৩-এ বাংলা লিখতে যে সমস্যা হতো এতে তা দূর্স করা হয়েছে৷

অসমিয়া অপশন :

অসমিয়া ভাষা ব্যবহারের্স জন্য এটি বানানো হয়েছে৷ ক্লাসিক অপশনে অসমিয়া ব্যবহারের্স জন্য বিজয়, সত্যজিত্ এবং গীতাঞ্জলি কী বোর্ডসহ একটি আলাদা ফন্টগোষ্ঠী দেয়া হয়েছে৷ এই ফন্টে অসমিয়া বর্ণ পাওয়া যায়৷ উপরে বর্ণিত সুবিধাগুলো ছাড়াও এর্স অন্য বৈশিষ্ট্যগুলো নিম্নরূপ :

০১. এতে র্সয়েছে ৭৯টি ফন্ট পরিবারের্স স্বাভাবিক, বোল্ড, ইটালিক ও বোল্ড ইটালিক স্টাইলসহ ক্লাসিক, সাবরিনা, গোল্ড এবং ইউনিকোড ফন্ট৷

০২. এতে র্সয়েছে একগুচ্ছ ডাটা কনভার্টার্স, যা দিয়ে পুর্সনো বিজয় সংস্কর্সণ থেকে ক্লাসিক, ক্লাসিক থেকে গোল্ড/সাবরিনা, গোল্ড থেকে ক্লাসিক/সাবরিনা, সাবরিনা থেকে ক্লাসিক/গোল্ড, ম্যাক পুর্সনো থেকে ম্যাক নতুন বা অন্য সংস্কর্সণে এবং ক্লাসিক থেকে ইউনিকোডে রূপান্তর্স ছাড়াও লেখনী, প্রশিকা প্রবর্তন ও নকশী থেকে ক্লাসিক/গোল্ড/ইউনিকোডে কনভার্ট করার্স সুবিধা৷ কনভার্টার্সটির্স ফলে বাংলাদেশে ব্যবহার্স হওয়া বর্তমান বা অতীতের্স যেকোনো বাংলা ডাটা নিয়ে কাজ কর্মকর্তাতে কোনো সমস্যা হবে না৷

০৩. বাংলাদেশ ও ভার্সতে ব্যবহার্স হওয়া জনপ্রিয় কী-বোর্ড যেমন মুনীর্স, প্রমিত, সত্যজিত্, গীতাঞ্জলী ইত্যাদি ক্লাসিক অপশনে যুক্ত করা হয়েছে৷

০৪. এতে আরো র্সয়েছে ইউনিকোড ও ক্লাসিক বানান শুদ্ধিকর্মকর্তাণ ব্যবস্থা৷ ইউনিকোড ও ক্লাসিক অভিধান যুক্ত করার্স ফলে বাংলা বানান শুদ্ধ করে লেখার্স ও নতুন শব্দ অভিধানে যুক্ত করার্স সুবিধা পাবেন৷

০৫. এর্স আরেকটি বৈশিষ্ট্য হলো, এটি ব্যবহার্স করে ইন্টার্সনেট ব্রাউজারে ও ই-মেইলে বাংলা লেখার্স সুবিধা৷

০৬. এর্স সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে, এর্স কী-বোর্ড কমান্ড পরিবর্তনযোগ্য৷

০৭. এটি উইন্ডোজ ভিসতা সমর্থন করে৷

বিজয় বায়ান্ন

পাইরেসি বন্ধের্স লক্ষ্যে শুধু ক্লাসিক কোড সমর্থিত এই ভার্সনটি খুবই কম দামে, বাজারে ছেড়েছে আনন্দ কমপিউটার্স৷ এটি বিজয় একুশের্স ছোট সংস্কর্সণ৷

আনন্দ কমপিউটার্সের্স ২০০৮-এর্স নতুন পণ্য চালু করা সম্পর্কে মোস্তাফা জব্বার্স বলেন, আমরাবিজয়পিসি এবং ল্যাপটপ বাজার্সজাত কর্মকর্তাতে যাচ্ছি খুব শিগগির্সই৷ যার্স মধ্যে বিজয় একুশে বিল্টইন থাকবে৷ অবশ্য এর্স বাজার্সজাত আনন্দ কমপিউটার্স সরাসরি কর্মকর্তাবে না৷ ডিস্ট্রিবিউটরের্স মাধ্যমে বাজার্সজাত করা হবে৷ ল্যাপটপে কী-বোর্ডে বাংলা বিজয় লে-আউট প্রিন্টসহ বিক্রি করার্স পরিকল্পনা আছে৷

সিআর্সবিএলপি

ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালরে কমপিউটার্স বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের্স অধীনে প্রতিষ্ঠিত সেন্টার্স ফর্স রিসার্চ অন বাংলা ল্যাঙ্গুয়েজ প্রসেসিং তথা সিআর্সবিএলপি নামের্স গবেষণা কেন্দ্রে কমপিউটারে বাংলা ভাষা প্রয়োগ নিয়ে গবেষণা চলছে দীর্ঘদিন ধরে৷



সিআর্সবিএলপি গবেষণা কেন্দ্রের্স প্রকল্প গ্রহণ করা হয় ২০০৪ সালে এবং ২০০৫ সাল থেকে এর্স কাজ শুরু হয়৷ এ গবেষণাকর্মে আর্থিকভাবে সাহায্য কর্মকর্তাছে কানাডীয় সাহায্য সংস্থা ইন্টার্সন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট রিসার্চ কর্পোরেশন তথা আইডিআর্সসি৷

সিআর্সবিএলপি গবেষণাকর্মে বেশ কিছু সফটওয়্যার্স নিয়ে কাজ হচ্ছে বা হয়েছে৷ এগুলো হলো : বাংলা প্যাড টেক্সট এডিটর্স, ওসিআর্স, স্পেল চেকার্স, ইংলিশ টু বেঙ্গলি ট্রান্সলিটারেশন, বাংলা মর্সফোলজিক্যাল অ্যানালাইজার্স, ফন্ট কনভার্টার্স (ট্রু টাইপ টু ইউনিকোড), বাংলা গ্রামার্স চেকার্স, স্পিচ টু টেক্সট কনভার্টার্স, টেক্সট টু স্পিচ কনভার্টার্স, বাংলা টেক্সট ক্যাটাগরাইজেশন, বাংলা প্রোনাউনসিয়েশন জেনারেটর্স, বাংলা টেক্সট সামারাইজেশন, বাংলা প্রথম আলো কর্মকর্তাপাস অ্যানালাইসিস, বাংলা ডিকশনারি, বাংলা সিনট্যাকটিক পার্সিং, বাংলা পার্টস অব স্পিচ স্ট্যাগিং, বাংলা স্টিমিং ইত্যাদি৷

আর্স এসব সফটওয়্যার্স ডাউনলোড করা যাবে :http://www.bracu.ac.bd/research/crblp/download ওয়েবসাইট থেকে৷

সিআর্সবিএলপি কনভার্টার্স

ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির্স সিআর্সপিএলপি-র্স ১.১ ভার্সনটি চালু করা হয়েছে গত বছরের্স সেপ্টেম্বরের্স ১২ তারিখে এবং প্রথম ভার্সনটি চালু হয়েছিল ১৮ মে৷ এই প্রোগ্রামটি ব্যবহার্স করে বাংলা ট্রু টাইপ ফন্ট দিয়ে লেখাকে বা ASCII এনকোডেড টেক্সটকে ইউনিকোডে রূপান্তর্স করা যায়৷ আসকি বা আমেরিকান স্ট্যান্ডার্ড কোড ফর্স ইনফর্সমেশন ইন্টার্সচেঞ্জ (ASCII) এনকোডেড ফন্ট দিয়ে লেখা অনেক বাংলা ডকুমেন্ট আছে, যেগুলোর্স একটির্স সাথে অন্যটির্স এনকোডিংয়ের্স কোনো সামঞ্জস্য নেই৷ এছাড়া এমন কিছু তথাকথিত আসকি সাপোর্টেড ফন্ট র্সয়েছে, যেগুলোর্স ভিন্ন ভিন্ন সংস্কর্সণ সংখ্যা পরিবর্তন না করেই এনকোডিং বা সঙ্কেত পরিবর্তন করা হয়েছে৷ সিআর্সবিএলপি কনভার্টারের্স আরেকটি অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, এটি বিভিন্ন ফর্সমেটে ফাইল যেমন এইচটিএমএল, মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ডকুমেন্ট, প্লেইন টেক্সট-এর্স আসকি এনকোডেড লেখাগুলোকে ইউনিকোডে পরিবর্তন কর্মকর্তাতে পারে৷ প্রোগ্রামটি দিয়ে চার্সটি ফন্টের্স লেখাকে ইউনিকোডে রূপান্তর্স করা যায়৷ এগুলো হলো : Bijoy 2000 SutonnyMJ, Bangsee Alpona, Prothoma ও Alo৷ এটি চালাতে জাভা রানটাইম এনভায়র্সনমেন্ট ১.৫ বা এর্স পর্সবর্তী সংস্কর্সণ লাগবে৷

বাংলা ওসিআর্স

বাংলা ওসিআর্স তথা বাংলা অপটিক্যাল ক্যারেক্টার্স রিকগনাইজার্স প্রোগ্রাম দিয়ে বাংলা স্ক্রিপ্ট থেকে লেখাকে ওয়ার্ড ডকুমেন্টে নেয়া যায়৷ এখানে ইনপুট হিসেবে স্ক্যান করা বাংলা ডকুমেন্ট বা নথির্স ছবি নিয়ে আউটপুট হিসেবে পরিমার্জনযোগ্য ইউনিকোড টেক্সটে রূপান্তর্স করে৷ সিআর্সবিএলপি এ সফটওয়্যার্সকে জিপিএল-এর্স আওতাভুক্ত করে রিলিজ করায় এটি বিনামূল্যে পাওয়া যাবে৷ বাংলা ওসিআরের্স প্রথম সংস্কর্সণ হচ্ছে ০.১ এবং এটি ২০০৬ সালের্স ২৮ ডিসেম্বরে বাজারে চালু করা হয়েছিলো৷ এটি চালানোর্স জন্য কমপিউটারে ডট নেট ফ্রেমওয়ার্ক ভার্সন ২.০ বা পর্সবর্তী ভার্সন ইনস্টল থাকতে হবে৷



এই প্রোগ্রামটির্স উল্লেখযোগ্য কিছু বৈশিষ্ট্য হচ্ছে, এটি বেশ কিছু ফর্সমেটের্স ছবি থেকে বাংলা লেখাকে ইউনিকোডে রূপান্তর্স কর্মকর্তাতে সক্ষম এবং এর্স ক্যারেক্টার্স রিকগনিশন বা চিনে নেয়ার্স প্রক্রিয়াটিও বেশ দ্রুত৷ এছাড়া প্রোগ্রামটির্স ইউজার্স ইন্টার্সফেজস খুবই সাধার্সণ ও ব্যবহার্স বেশ সহজ৷ বাংলা ওসিআর্স ডেভেলপমেন্ট টিমে কাজ কর্মকর্তাছেন মো: আবুল হাসনাত, এস এম মর্তুজা হাবিব এবং ড. মুমিত খান৷

বাংলায় ভিসতা ও অফিস ২০০৭

ধর্ম, গোত্র, ভাষা, সংস্কৃতি নির্বিশেষে সব মহলের্স মানুষের্স জন্য কমপিউটার্স ব্যবহার্সকে আরো সহজ ও অর্থপূর্ণ করে তোলার্স আশাবাদ ব্যক্ত করেছে মাইক্রোসফট৷ এজন্য এরা নিজস্ব ও আঞ্চলিক সর্সকারি কর্মীদের্স সহায়তায় একটি ল্যাঙ্গুয়েজ প্যাক উন্নয়ন করার্স চেষ্টা কর্মকর্তাছে, যাতে উইন্ডোজ ভিসতা ও অফিস ২০০৭ পরিচালনা করা সবার্স কাছে সহজ হয়৷ মাইক্রোসফট তাদের্স এলএলপি-র্স আওতায় বাংলা ল্যাঙ্গুয়েজ ইন্টার্সফেস প্যাক তথা এলআইপি-এর্স কাজ শুরু করে বাংলাদেশ কমপিউটার্স কাউন্সিল এবং ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির্স সহযোগিতায়৷ এই এলআইপি-এর্স লক্ষ্য হচ্ছে সবাই যেনো তাদের্স সুবিধামতো মাতৃভাষায় কমপিউটার্স চালাতে সক্ষম হয়৷ এই প্রোগ্রামের্স তিনটি উদ্দেশ্য র্সয়েছে : এক. ভাষা/সংস্কৃতি ভিত্তিক, দুই. প্রযুক্তি ভিত্তিক এবং ৩. এলাকাভিত্তিক৷

তাছাড়া এরা স্থানীয় ভাষায় অনূদিত মানসম্মত তথ্য ও প্রযুক্তিগত শব্দকোষ বানাবে ভাষাবিদ, বিশ্ববিদ্যালয়সমূহ এবং সর্সকারের্স সহযোগিতায়৷ আর্স এই এলাকাভিত্তিক শব্দকোষসমূহ ওয়েবসাইট থেকে বিনামূল্যে বিতর্সণের্স সুবিধা দেবে৷ এর্স ফলে মাইক্রোসফট অফিস স্ট্যান্ডার্ড এডিশন ২০০৭ এবং উইন্ডোজ ভিসতার্স মতো অপারেটিং সিস্টেমেও ব্যবহার্সকারী নিজের্স ভাষায় কমপিউটার্স চালাতে পার্সবে৷

অঙ্কুর্স গ্রুপ



বাংলাদেশে যে কয়টি ওপেনসোর্স ডেভেলপমেন্ট স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা আছে, এর্স মধ্যে অঙ্কুর্স একটি উল্লেখযোগ্য সংস্থা৷ মজার্স ব্যাপার্স হচ্ছে, এর্স বেশির্সভাগ কার্যক্রমই ঘটে ইন্টার্সনেটের্স মাধ্যমে৷ অঙ্কুরের্স সদস্যরা ছড়িয়ে আছেন উত্তর্স আমেরিকা, বাংলাদেশ ও ভার্সতসহ বিভিন্ন স্থানে৷ সবাই নিজ নিজ অবস্থান থেকে পরিশ্রম করে যাচ্ছেন৷ অঙ্কুরের্স প্রকল্প প্রতিষ্ঠাতা ও মুখ্য সমন্বয়কারী হচ্ছেন তানিম আহমেদ৷ অঙ্কুরের্স গবেষণা প্রকল্পের্স বেশির্সভাগই হচ্ছে গনুহ (GNU)/লিনআক্সভিত্তিক৷ GNU -এর্স অর্থ হচ্ছে GNUs not Unix. লিনআক্স-এর্স বিভিন্ন ভার্সন যেমন-জিনোম, ম্যান্ড্রিভা, ওনে সুসি, ডেবিয়ান, ফেডোরা ইত্যাদিকে বাংলায় রূপান্তর্স করার্স কাজই এই প্রতিষ্ঠানটির্স অন্যতম উল্লেখযোগ্য বিষয়৷ সম্প্রতি তাদের্স চালু করা কিছু পণ্যের্স ওপর্স নিচে আলোকপাত করা হলো৷

ওপেনঅফিস.অর্গ বাংলা প্রকল্প

ওপেনঅফিস.অর্গ বা OOo (OpenOffice.org) হচ্ছে একটি অফিস স্যুট৷ সান মাইক্রোসিস্টেম যখন ২০০০ সালে স্টার্স অফিস সফটওয়্যারের্স সোর্স কোড ওপেন সোর্স কমিউনিটিতে প্রকাশ করে তখন থেকেই ওপেন অফিস, অর্গ-এর্স যাত্রা শুরু হয়৷ ওপেন অফিস. অর্গ-এর্স অফিশিয়াল টিম হচ্ছে অঙ্কুর্স গ্রুপ৷ অঙ্কুর্স ওপেন অফিস. অর্গ ২.০-এর্স বাংলা ট্রান্সলেশনের্স কাজ শুরু করেছে৷ ইতোমধ্যে সফটওয়্যারের্স মেনু সংক্রান্ত সব বিষয়বস্তুর্স বাংলা রূপান্তর্স করার্স কাজ শেষ হয়েছে এবং বাংলায় একটা পরীক্ষামূলক সংস্কর্সণ অবমুক্ত করা হয়েছে৷

ওপেন অফিস. অর্গ-এর্স নতুন সংস্কর্সণ OOo 2x Office suite -এর্স প্রোগ্রামগুলো নিম্নরূপ-

রাইটার্স-ওয়ার্ড প্রসেসর্স

এটি একটি উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন টুল৷ এটি দিয়ে চিঠি, বই, প্রতিবেদন, সংবাদ পাওয়া, কোনো স্থান বা কর্মসূচি সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত বিবর্সণসহ পুস্তিকা ইত্যাদি ডকুমেন্ট তৈরি করা যায়৷ অন্য জায়গা থেকে গ্রাফিক্স বা অবজেক্ট এনে রাইটার্স ডকুমেন্টে সংযোজন কর্মকর্তাতে পার্সবেন৷

ক্যালক-স্প্রেডশিট

ক্যালক-এ র্সয়েছে উন্নত বিশ্লেষণ ক্ষমতা, চার্ট এবং সিদ্ধান্ত নেয়ার্স ক্ষমতাসম্পন্ন কিছু বৈশিষ্ট্য৷ আর্থিক, পরিসংখ্যান, গাণিতিক এবং অন্যান্য কাজের্স জন্য ৩০০-এর্স অধিক ফাংশন অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে৷ এটি দিয়ে টুডি ও থ্রিডি চার্টও বানানো যায়৷

ইমপ্রেস-প্রেজেন্টেশেন

এই মাল্টিমিডিয়া প্রেজেন্Uশেন টুল দিয়ে এনিমেশন, ড্রয়িং টুল, স্পেশাল ইফেক্ট, ভিডিও ক্লিপ, সাউন্ড, ফন্টওয়ার্ক ইত্যাদি যুক্ত করে মাল্টিমিডিয়া প্রেজেন্Uশেনের্স সৌন্দর্য বাড়ানো যায়৷

ড্র-ভেক্টর্স গ্রাফিক্স

এই ভেক্টর্স ড্রয়িং টুলটি দিয়ে সাধার্সণ ছবি বা ফ্লোচার্ট থেকে ত্রিমাত্রিক শিল্পকর্ম বানানোর্স সুবিধা র্সয়েছে৷

বেজ-ডাটাবেজ

এতে ফর্ম, প্রতিবেদন, জিজ্ঞাসামূলক প্রশ্ন, তালিকা, অভিমত ও বিবর্সণ তৈরি এবং পরিবর্তন কর্মকর্তাতে পার্সবেন৷ এতে HSQLDB-কে রিলেশনাল ডাটাবেজ ইঞ্জিন হিসেবে ব্যবহার্স হয়৷

ম্যাথ

এর্স মাধ্যমে সূত্র ও সমীকর্মকর্তাণ সম্পাদনা করা যায়৷ এতে অনেক জটিল সমীকর্মকর্তাণ লেখা সম্ভব৷

ওপেন অফিস. অর্গ-এর্স সুবিধা

অন্যান্য অফিস স্যুটের্স তুলনায় OOo কিছু বাড়তি সূবিধা দিয়ে থাকে৷ এগুলো হচ্ছে- এর্স কোনো লাইসেন্স ফি নেই৷ এটি পুরোপুরি ফ্রি৷ ওপেন সোর্স লাইসেন্সভিত্তিক হওয়ায় এটি যত খুশি বিতর্সণ, অনুলিপি তৈরি ও পরিবর্ধনযোগ্য ক্রস প্লাটফর্ম সুবিধার্স ফলে যেকোনো অপারেটিং সিস্টেমে চলে৷ এটি প্রায় ৭০টির্সও বেশি ভাষা সমর্থন করে৷ এর্স সব উপাদান একই ধর্সনের্স লুক অ্যান্ড ফিল-এ তৈরি যাতে এদের্স ব্যবহার্স ও পরিচালনা সহজ হয়৷ OOo -এর্স উপাদানগুলোর্স একটি আরেকটির্স সাথে সম্পর্কযুক্ত সব উপাদান একটি সাধার্সণ বানান নিরীক্ষক ব্যবহার্স করে এর্স উপাদানগুলো অনেক বেশি ফাইল ফর্সমেট সাপোর্ট করে৷ এতে কোনো ভেন্ডর্স লক ইন নেই, তাই এর্স ওপেন ডকুমেন্ট যেকোনো টেক্সট এডিটরের্স সাহায্যে পড়া যায়৷ এর্স ফ্রেমওয়ার্ক উন্মুক্ত ও প্রকাশিত৷ মজিলায় বাংলা বানান নিরীক্ষক অভিধান

সম্প্রতি অঙ্কুর্স মজিলা ফায়ার্সফক্স এবং মজিলা থান্ডানির্বাহীর্ডের্স জন্য বাংলা বানান নিরীক্ষক অভিধান রিলিজ দিয়েছে৷ এই বানান নিরীক্ষক অভিধানের্স উদ্দেশ্য হলো যারা ফায়ার্সফক্স বা থান্ডানির্বাহীর্ডে ইউনিকোড বাংলা লেখেন, তাদের্স বানানের্স ভুল ধর্সতে এই বানান নিরীক্ষক অভিধান সহযোগিতা কর্মকর্তাবে৷ কমপিউটারে বাংলা ব্যবহার্সকারীদের্স জন্য এটা চমত্কার্স একটা উপহার্স৷

হৈমন্তী

বাংলা অপারেটিং সিস্টেমের্স অগ্রগতিতে নতুন আরেকটি ধাপ হচ্ছে হৈমন্তী৷ উবুন্টু ৭.১০ (গাটসিগিবন)- এর্স ওপরে ভিত্তি করে অঙ্কুরের্স পক্ষ থেকে এর্স উন্নয়নে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন মুজাহিদুল ইসলাম সুমন৷ এতে যুক্ত করা হয়েছে বংশী নামের্স অডিও টুল, ভিএলসি প্লেয়ার্স, ডিভিডি প্লেয়ার্স ওগলি, ফ্ল্যাশ চালানোর্স জন্য জিন্যাশ, পার্টিশন এডিটর্স হিসেবে জি-পার্টেড৷ এছাড়াও ডিফল্ট প্রোগ্রাম হিসেবে র্সয়েছে ফায়ার্সফক্স, থান্ডানির্বাহীর্ড, পিজিন এবং বাংলা লেখার্স সুবিধার্থে র্সয়েছে জাতীয় ও প্রভাত কী বোর্ড৷ এতে বাড়তি সুবিধা হিসেবে কিছু রেস্ট্রিকটেড ড্রাইভার্স ইনস্টল করা আছে, যা উবুন্টুতে আলাদাভাবে ডাউনলোড করে নিতে হতো৷ উবুন্টুর্স লাইভ বুট সিডি গ্রাফিক্যাল ইনস্টলেশন ইন্টার্সফেস ইত্যাদি অপশন বাদ দেয়া হয়েছে৷

হৈমন্তী চালাতে প্রয়োজন পড়বে ৩৮৪ মেগাবাইট মেমরি৷ বিনামূল্যে হৈমন্তী ডাউনলোড কর্মকর্তাতে ভিজিট করুন http://www.ankur.org.bd৷ ফাইল সাইজ মাত্র ৬৯১.০১ মেগাবাইট৷ এছাড়াও প্রতি শনি, র্সবি ও বৃহস্পতিবার্স বিকেলে বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক থেকে তা স্বল্পমূল্যে বিতর্সণ করা হয়৷

শ্রাবণী

অঙ্কুরের্স প্রথম বাংলা অপারেটিং সিস্টেমটি ছিল শ্রাবণী, যা উবুন্টু ৬.০৬ (ডেপার্সড্রেক)-এর্স বাংলা সংস্কর্সণ৷ শ্রাবণীকে আরো উন্নত করে এবং একে উবুন্টু ৬.১১-এর্স ওপর্স ভিত্তি করে গত বছরের্স ১৪ ফেব্রুয়ারি একুশে বইমেলায় অঙ্কুর্স ও সিসটেক ডিজিটালের্স যৌথ প্রয়াসে এই লিনআক্সভিত্তিক বাংলা অপারেটিং সিস্টেম অবমুক্ত করা হয়েছিল৷ মজার্স ব্যাপার্স হলো এই অপারেটিং সিস্টেমের্স কোডনেম শ্রাবণী দেয়া হয়েছে৷ কেননা, এর্স ডেভেলপমেন্টের্স কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে শ্রাবণ মাসে৷ এই অপারেটিং সিস্টেমে ওয়ার্ড প্রসেসিং, প্রেজেনটেশেন তৈরি, ডেস্কটপ পাবলিশিং, ইন্টার্সনেট ব্রাউজিং, গান শোনা, ভিডিও দেখা ইত্যাদি কাজ করা সম্ভব৷

এছাড়া অঙ্কুরের্স অন্য প্রজেক্টগুলোর্স মধ্যে আরো আছে বেঙ্গলি গুগল (www.google.com -এর্স বাংলা সংস্কর্সণ), বেঙ্গলি ডিকশনারি, ফ্রি বাংলা ফন্ট প্রজেক্ট, লেখো, আর্কাইভ অব বেঙ্গলি লিটারেচার্স, অঙ্কুর্স বাংলা লাইভ! সিডি (কুয়াশা নামে বের্স করা বাংলা লিনআক্স, যা ভিমযযধস-এর্স ওপর্স ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছিলো এবং কুয়াশা লিনআক্স এশিয়া ২০০৬-এ বেস্ট ডট অর্গ (.OGR)মেলা প্রজেক্টের্স স্বীকৃতি পেয়েছিল৷

ওমাইক্রনল্যাব

ওমাইক্রনল্যাবও বাংলা ভাষার্স জন্য কাজ করে যাচ্ছে ২০০৩ সাল থেকে৷ এই প্রতিষ্ঠান থেকে অভ্র কী-বোর্ড ও অভ্র কনভার্টার্স বের্স হয়েছে৷ এগুলো সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হলো৷

অভ্র কী বোর্ড



ভাষা হোক উন্মুক্ত এই শ্লোগানকে সামনে রেখে অভ্র কী-বোর্ডের্স আবির্ভাব ঘটে ২০০৩ সালের্স স্বাধীনতা দিবসে অর্থাত্ ২৬ মার্চে৷ অভ্র কী-বোর্ড দিয়ে উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমে ইউনিকোডভিত্তিক বাংলা লেখা যায়৷ এর্স সহজ ব্যবহার্স, বিনামূল্যে বিতর্সণযোগ্যতা এবং আরো কিছু অনন্য বৈশিষ্ট্যের্স ফলে এটি বর্তমান হোম ইউজার্সদের্স অন্যতম জনপ্রিয় একটি বাংলা টাইপ করার্স সফটওয়্যার্স৷ এর্স সহজ ব্যবহার্স ও কিছু অনন্য বৈশিষ্ট্যের্স কার্সণে এটি বর্তমানের্স অন্যতম জনপ্রিয় একটি বাংলা টাইপ করার্স সফটওয়্যার্স৷ এর্স অনন্য বৈশিষ্ট্যের্স একটি হচ্ছে ইংলিশ থেকে বাংলা ফনেটিক টাইপিং তথা উচ্চার্সণভিত্তিক ইংরেজি থেকে বাংলা লেখা, যা হোম ইউজার্সদের্স জন্য খুবই চমত্কার্স একটি টাইপিং প্রসেস৷ এই কী বোর্ডে টাইপ করার্স জন্য বাংলা টাইপিং না জানলেও চলবে৷ এই প্রসেসে ইউজার্স কী-বোর্ডে ইংলিশ লিখবেন কিন্তু দেখা হবে বাংলায়, উদাহর্সণস্বরূপ আপনি লিখলেন, amar Sonar bangla ami tOmay valobasi , এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে আমার্স সোনার্স বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি হয়ে যাবে৷ অভ্র কী-বোর্ড (ভার্সন ৪)-এর্স সাথে চার্সটি বাংলা লে-আউট বিদ্যমান!

০১. অভ্র ইজি কী-বোর্ড,
০২. বর্ণনা কী-বোর্ড,
০৩. জাতীয় কী-বোর্ড এবং
০৪. ইউনিবিজয় কী-বোর্ড৷



এখানে উল্লেখ্য, ইউনিবিজয় হচ্ছে এসময়ের্স জনপ্রিয় ও বহুল ব্যবহৃত বিজয় লে-আউরে সামান্য পরিমার্জিত সংস্কর্সণ৷ ইউজার্স চাইলে নিজের্স সুবিধা ও পছন্দমতো লে-আউট তৈরি করে নিতে পার্সবেন৷ এতে আরো আছে মাউস দিয়ে অনস্ক্রিন কী-বোর্ড থেকে বাংলা টাইপিং৷ যার্স ফলে যারা কী-বোর্ডের্স লে-আউট মনে রাখতে পারেন না বা কখনো বাংলা টাইপ করেননি তারাও খুব সহজে এ পদ্ধতিতে বাংলা টাইপ কর্মকর্তাতে পার্সবেন৷

এটি দিয়ে ইউনিকোড সাপোর্টেড সফটওয়্যার্স, যেমন-অফিস এক্সপি, নোটপ্যাড, ওয়ার্ডপ্যাড, ওপেন অফিস, ইন্টার্সনেট এক্সপ্লোরার্স ৭, অপেরা ৯, মজিলা ফায়ার্সফক্স ইত্যাদিতে বাংলায় লেখা যাবে৷ তবে অ্যাডোবির্স সফটওয়্যার্সগুলোতে (ফটোশপ, ইলাস্ট্রেটর্স) ইউনিকোড সাপোর্ট থাকলেও বাংলার্স জন্য সাপোর্ট নেই৷ এর্স সাহায্যে খুব সহজেই পিসির্স ড্রাইভ, ফাইল ও ফোল্ডারের্স নাম বাংলায় দেয়া যাবে৷ অভ্র ইজি লে-আউট বা অভ্র মাউস দিয়ে বাংলার্স পাশাপাশি অসমিয়া (Assamese) ভাষায়ও লেখা সম্ভব, কার্সণ অসমিয়া ভাষায় বাংলার্স চেয়ে অতিরিক্ত যে দুটি ব্যঞ্জনবর্ণ ব্যবহার্স করা হয়, তা এটিতে দেয়া আছে৷ অভ্র ব্যবহার্স করে ইয়াহু মেসেঞ্জার্স বা এমএসএন মেসেঞ্জারে বাংলায় চ্যাট করা যায়৷ এক্ষেত্রে মেসেঞ্জারের্স ফন্ট হিসেবে যেকোনো ইউনিকোড সাপোর্টেড বাংলা ফন্ট, যেমন-সোলায়মানলিপি সিলেক্ট করে নিতে হবে এবং যার্স সাথে চ্যাট কর্মকর্তাবেন তার্স পিসিতে সোলায়মানলিপি ফন্টটি ইনস্টল থাকতে হবে৷ অভ্র শুধু উইন্ডোজভিত্তিক অপারেটিং সিস্টেমের্স জন্য বানানো হয়েছে৷

পোর্টেবল অভ্র কী-বোর্ড

প্রতিটি নতুন ভার্সনে ইউজার্সদের্স নতুন কিছুর্স সাথে পরিচয় করানো যেনো এই সফটওয়্যারের্স ডেভেলপার্সদের্স নেশা হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ ২০০৭ সালেও তেমনিভাবে পোর্টেবল অভ্র কী-বোর্ড ভার্সন ৪-এর্স নতুন ও অনন্য বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এর্স পোর্টেবিলিটি৷ বাংলায় কোনো সফটওয়্যারের্স ক্ষেত্রে পোর্টেবিলিটির্স প্রথম দৃষ্টান্ত হচ্ছে এটি৷ অনেকেই বলতে পারেন পোর্টেবল এডিশন সফটওয়্যার্স আবার্স কী ধর্সনের্স সফটওয়্যার্স, তাদের্স জন্য বলতে হয়, পোর্টেবল সফটওয়্যার্স এমনভাবে বানানো হয়, যাতে এটি চালাতে সফটওয়্যার্সটি ইনস্টল করার্স দর্সকার্স পড়ে না, পেনড্রাইভ বা আইপডের্স মতো কোনো রিমুভেবল স্টোরেজ থেকে পোর্টেবল সফটওয়্যার্সগুলো সরাসরি চলতে সক্ষম৷ শুধু তাই নয়, এক কমপিউটার্স থেকে আরেক কমপিউটারে নিয়ে গেলেও পোর্টেবল সফটওয়্যারের্স সেটিং বা কোনো অপশনের্স পরিবর্তন হয় না৷ পোর্টেবল ভার্সনে অভ্র কী-বোর্ড স্ট্যান্ডার্ড এডিশনের্স সব সুবিধা র্সয়েছে৷ এছাড়া বাড়তি বৈশিষ্ট্য হিসেবে র্সয়েছে ভার্চুয়াল বাংলা ফন্ট ইনস্টলার্স৷ এই ভার্চুয়াল বাংলা ফন্ট ইনস্টলার্স-এর্স মাধ্যমে অভ্র কী-বোর্ড যতক্ষণ চলবে, ততক্ষণ ব্যবহার্সকারী লেখার্স জন্য সিয়াম রূপালি নারে একটি বাংলা ফন্ট দিয়ে লিখতে পার্সবেন, ফন্ট ইনস্টল করার্স প্রয়োজন পড়বে না৷ অ্যাডমিন অ্যাক্সেস ছাড়া যেখানে উইন্ডোজে কোনো ফন্ট ইনস্টল করা যায় না, সেখানেও এই ভার্চুয়াল বাংলা ফন্ট ইনস্টলার্স অনাসায়ে কাজ কর্মকর্তাতে সক্ষম৷

অভ্র কী-বোর্ড পোর্টেবল এডিশনটিও স্ট্যান্ডার্ড এডিশনের্স মতো ফ্রি৷ যেকেউ বাংলা লেখার্স কাজে এটি বিনামূল্যে ব্যবহার্স কর্মকর্তাতে পার্সবেন৷ অভ্র কী-বোর্ড পোর্টেবল এডিশন নিচের্স লিঙ্ক থেকে ডাইনলোড করা যাবে : http://www.omiconlab.com/portableavro-keboard.html

অভ্র কনভার্টার্স

অভ্র কনভার্টারকে বলা যায় অল-ইন-ওয়ান বাংলা ডকুমেন্ট কনভার্টার৷ অভ্র কনভার্টার শুধু উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম সাপোর্ট করে৷ এর নতুন ভার্সন অভ্র কনভার্টার ০.৬.০ (বেটা ৩) ব্যবহার করে প্লেইন টেক্সট ডকুমেন্ট, রিচ টেক্সট ডকুমেন্ট, মাইক্রোসফট অফিস ওয়ার্ড ডকুমেন্ট, ওয়ার্ড ২০০৭ ডকুমেন্ট, মাইক্রোসফট এক্সেস ডাটাবেজ ইত্যাদি থেকে বাংলা লেখা খুব সহজেই ইউনিকোডভিত্তিক বাংলা ফন্টে রূপান্তর করা যায়৷ এছাড়া ক্লিপবোর্ডে টেক্সট কপি/পেস্ট করে দিলেও কনভার্সনের কাজ সম্পন্ন হয়৷

একুশে



একুশে আরেকটি সংস্থা যারা কমপিউটিংয়ে বাংলা ভাষার বিকাশে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে৷ তাদের কিছু প্রজেক্ট সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত বিবরণ নিচে দেয়া হলো :

অনলাইন ডিকশনারি

ইন্টারনেটে কাজ করার সময় প্রয়োজনে কোনো শব্দের অর্থ দ্রুত জানা সম্ভব যদি অনলাইনে ডিকশনারি থাকে৷ আর যদি তা হয় বাংলায়, তবে কেমন হয় বলুন তো? ইউনিকোড সমর্থিত এই বাংলা ডিকশনারিটির সুবিধা পাওয়া যাবে www.ovidhan.org সাইটটিতে৷ এতে ইংরেজি থেকে বাংলা ও বাংলা থেকে বাংলা শব্দের অর্থ জানা যাবে খুব সহজেই৷

বাংলা মজিলা

আপনারা জানেন মজিলা হচ্ছে ওপেন সোর্সভিত্তিক একটি শক্তিশালী ওয়েব ব্রাউজার৷ এই ওয়েব ব্রাউজারে বাংলা সাপোর্ট পাওয়ার জন্য একুশে রিলিজ করেছে বাংলা ল্যাঙ্গুয়েজ প্যাক৷ এতে মজিলায় বাংলায় কোনো কিছু সঠিকভাবে অনুসন্ধান করা এবং এর অন্যান্য অ্যাপ্লিকেশন বাংলায় দেখা সম্ভব হবে৷

বাংলা ভার্চুয়াল কী-বোর্ড স্ক্রিপ্ট

বাংলা ভার্চুয়াল কী বোর্ড স্ক্রিপ্টসের উন্নয়ন করেছেন একুশের পক্ষ থেকে সবুজ কুমার কুণ্ডু৷ একুশের ওয়েব সাইট থেকে বিনামূল্যে এটি ডাউনলোড করে যেকেউ নিজেদের ওয়েবসাইটে ব্যবহার কর্মকর্তাতে পারবেন৷ ওয়েব সাইটটির ঠিকানা হচ্ছে http://ekhushey.org

বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক

বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক তথা ঈঢমওূ হচ্ছে বাংলাদেশ ফান্ডামেন্টাল রিসার্চ ইনস্টিটিউট-এর একটি প্রজেক্ট৷ এর প্রধান লক্ষ্য বাংলাদেশে ওপেন সোর্সের ভাবমূর্তি বাড়াতে সহায়তা করা৷ এ প্রজেক্টের কাজ শুরু হয় ২০০৫ সালের ২৪ অক্টোবর থেকে৷ মূলত এটি বাংলাদেশের অপারেটিং সিস্টেম সংশ্লিষ্ট যাবতীয় কাজের প্রাণকেন্দ্র হিসেবে চিহ্নিত৷ এই প্রজেক্টের কাজের মধ্যে আরেকটি উল্লেখ্যযোগ্য কাজ হচ্ছে, উইকিপিডিয়ার বাংলা সংস্করণ বের করা৷

বাংলা উইকি



উইকিপিডিয়া (www.wikipedia.org) হচ্ছে বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে বড় বিশ্বকোষ৷ এই উইকিপিডিয়াকে বাংলা করার কাজ শুরু হয়েছিল ২০০৪ সাল থেকেই, কিন্তু কিছু প্রযুক্তিগত সীমাবদ্ধতার জন্য সে কাজে তেমন কোনো অগ্রগতি হয়নি৷ যার ফলে, বছর পেরিয়ে গেলেও দেখা গিয়েছিল এতে সংযোজিত নিবন্ধের সংখ্যা প্রায় ৫০০টি মাত্র৷ তখন মুনির হাসানের উত্সাহে বিডিওএসএন-এর অধীনে বাংলা উইকি নারে সংগঠন গঠন করা হয় ২০০৫ সালের জানুয়ারিতে৷ উইকি বাংলা ব্যবহারের জনসচেতনতা বাড়ানোর প্রয়াসে বিডিওএসএন ২০০৬ সালের বাংলা নববর্ষে ৠালি বের করে এবং একই বছরের আগস্ট মাসকে উইকি বাংলা মাস হিসেবে অভিহিত করে। এখন উইকি বাংলায় নিবন্ধের সংখ্যা ১৬০০ ছাড়িয়ে গেছে এবং লেখকের সংখ্যা প্রায় ১৭০০-এর উপরে৷ এদের নিরলস প্রচেষ্টার ফলে উইকি বাংলা এখন পৃথিবীর সবচেয়ে বড় বাংলা ভাষার ওয়েবসাইট৷ এছাড়া বিশ্বের ২৫০টি ভাষায় উইকিপিডিয়ার মধ্যে বাংলা উইকি ৪৩তম স্থানে অবস্থান কর্মকর্তাছে৷ শেষ কথা

বাংলা আমাদের মায়ের ভাষা৷ অনেক ত্যাগের বিনিময়ে আমাদেরকে ভাষার মর্যাদা রক্ষার লড়াই কর্মকর্তাতে হয়েছে৷ এই ভাষার মর্যাদা আমাদেরকেই রাখতে হবে৷ আধুনিক যুগে কমপিউটিং একটি অপরিহার্য বিষয়৷ এই কমপিউটিংকে আমাদের মাতৃভাষায় ব্যবহার কর্মকর্তাতে না পারাটা ক্ষমাহীন অপরাধ৷ আমরা সেই অপরাধের ভাগীদার হতে চাই না৷ অনেক কৃতী বাঙালির অবদানে আজ আমরা বাংলায় কমপিউটিং সম্ভব করে তুলেছি৷ দুঃখজনক হলেও সত্য, এতে সরকার বা বাংলা একাডেমীর অবদান নগণ্য৷ আমরা চাই সম্পূর্ণ কমপিউটিং যত দ্রুত সম্ভব বাংলায় চালু হোক৷ যত দ্রুত পুরোপুরি বাংলা কমপিউটিং চালু করা হবে বাঙালি জাতির জন্য তা ততই মঙ্গলজনক৷

বাংলা সফটওয়্যার ‍এবং ডাটাবেজের দক্ষিণ ‍এশিয়াতেই প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকার বাজার ‍আছে।

মোস্তাফা জব্বার



প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, ‍আনন্দ কম্পিউটার্স
সভাপতি, বাংলাদেশ কমপিউটার সমিতি

ডিজিটাল যন্ত্রে বাংলা ব্যবহার্স কর্মকর্তাতে সর্সকার্সসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের্স ভূমিকা সম্পর্কে আমি বলতে চাই, সর্সকারের্স বাংলাভাষা প্রয়োগ কর্মকর্তাতে কারিগরি দিক থেকে দায়িত্ব পালন কর্মকর্তাছে বাংলাদেশ কমপিউটার্স কাউন্সিল তথা বিসিসি৷ বাংলা একাডেমীর্স উচিত ছিল প্রিন্ট প্রকাশনাগুলোকে ডিজিটাল প্রকাশনায় উত্সাহিত করা৷ অর্থাত্ বৈদ্যুতিন বই (ই-বুক) প্রকাশ করা৷ র্সবীন্দ্র র্সচনাবলী, নজরুলের্স বইগুলো কম্পোজ করে সিডিতেই যাতে ১০০ টাকা থেকে ২০০ টাকায় পাওয়া যায় তার্স ব্যবস্থা করা৷ বাংলা একাডেমী ২০০৮ সালেও ১৯৫২ সালের্স সামন্তবাদী মানসিকতা থেকে এখনো বের্স হতে পারেনি৷

বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউট তথা বিএসটিআই বাংলা কী-বোর্ড প্রমিত করার্স ক্ষেত্রে ইটিফিফটিন কমিটিকে বাদ দিয়ে শুধু বিসিসি থেকে পাঠানো কী-বোর্ডকে জাতীয় কী-বোর্ড হিসেবে ঘোষণা করে৷ দুঃখের্স বিষয় বিএসটিআই যেটিকে জাতীয় কী-বোর্ড হিসেবে ঘোষণা করেছে সেটি ছিল বিজয় কী-বোর্ডের্স নকল৷ এরা চুরি করে কপিরাইট পর্যন্ত নিয়েছে৷ এরা যদি আমাকে জানিয়ে র্সয়্যালিটি না দিয়ে শুধু বলতো যে, এটা জাতীয়ভাবে ব্যবহার্স করা হবে তাহলেই চলতো৷ সর্সকারের্স একটি প্রতিষ্ঠান কপিরাইটকে অবজ্ঞা করে কপিরাইট কর্মকর্তাতে পারে এটি ছিল আমার্স কল্পনার্স বাইরে৷

বাংলা সফটওয়্যার্স এবং ডাটাবেজের্স দক্ষিণ এশিয়াতেই প্রায় ১০ হাজার্স কোটি টাকার্স বাজার্স আছে বলে আমি মনে করি৷ যেমন বাংলা লেখা এবং ওয়ার্ড প্রসেসিং করা এটাই একটা বিশাল বাজার্স৷ বাংলা ডাটাবেজ তার্স মধ্যে উল্লেখযোগ্য৷ তার্সপর্সও ডাটাবেজকে উপেক্ষা করা হচ্ছে৷ আমাদের্স দেশের্স সর্সকারি সফটওয়্যারের্স ভার্সনগুলো আগে বাংলায় ছিল৷ ব্যাংকিং সফটওয়্যারের্স নামে বাংলা ভাষাকে বিতাড়িত করা হয়েছে৷ অথচ আমরা প্রমাণ করেছি, আমাদের্স বিজয় লাইব্রেরি দিয়ে, যার্স মাধ্যমে বাংলা ডাটাবেজ মেইনটেন্ট করা সম্ভব৷ ব্যাংকিং ডাটাবেজ, ই-গভর্নেন্স এবং ওয়েবে কনটেন্ট তৈরি এগুলো সবই বাংলার্স বাজার্স৷ কেন জানি আমরা এ বাজার্সটি ধর্সতে পার্সছি না৷ আসলে এ মুহূর্তে বাংলা ভাষা প্রযুক্তির্স জন্য সর্সকার্সকে একটি ফোরাম কর্মকর্তাতে হবে

ড. মুমিত খান



সহাযোগী অধ্যাপক ও গবেষক
ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়

ওপেনসোর্সেকাজ করার্স ফলে যেকেউ সফটওয়্যার্সগুলোতে তাদের্স মতামত দিতে পার্সবেন এবং নিজেদের্স মতো করেও ডেভেলপ করে নিতে পার্সবেন৷ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সম্মেলনে ২০০৭ সালে এ গবেষণাকেন্দ্র থেকে ১১টি পেপার্স গৃহীত হয়৷ আমাদের্স সবচেয়ে বড় কাজ হচ্ছে জনবল বাড়ানো এবং যারা এ বিষয়ে পড়াশোনা কর্মকর্তাছে তাদের্স ক্যাপাসিটি বাড়ানো৷ বিশেষ করে বাংলা ল্যাঙ্গুয়েজটিক্সে৷ ইংরেজি ওসিআর্স কর্মকর্তাতে ২৫ বছর্স সময় লেগেছে৷ আমরা বাংলা ওসিআর্স-এর্স কাজ সবেমাত্র শুরু কর্মকর্তালাম৷ আগামী ১০ বছরে বাংলা কিভাবে সর্সকারের্স বৈদ্যুতিন সর্সকারের্স কার্যক্রমে (ই-গর্ভনেন্স) সহযোগিতা কর্মকর্তাতে পারে সেটাও আমাদের্স লক্ষ্য৷ এই প্রকল্প থেকে ৫ জন এখন পিএইচডি কর্মকর্তাছেন৷ আশা কর্মকর্তাছি তারা সবাই দেশে ফিরে আসবেন৷ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের্স কমপিউটার্স বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগ হচ্ছে আমাদের্স গবেষণা কেন্দ্রের্স পার্টনার্স৷

যতদিন পর্যন্ত বাংলা একাডেমী এবং বিসিসি একসাথে কাজ না কর্মকর্তাবে ততদিন পর্যন্ত সর্সকারি পর্যায়ে আমরা পিছিয়ে থাকবো৷

আসলে এ মুহূর্তে বাংলা ভাষা প্রযুক্তির্স জন্য সর্সকার্সকে একটি ফোরাম কর্মকর্তাতে হবে৷ যেখানে ভাষাবিদ, শিক্ষাবিদ এবং প্রযুক্তিবিদরা একসাথে বসে কথা বলতে পার্সবেন৷ এ উদ্যোগটি বাংলা একাডেমীকেই নিতে হবে ডিজিটাল যন্ত্রে বাংলা প্রয়োগের্স জন্য৷ এটি এখন সময়ের্স দাবি৷
পত্রিকায় লেখাটির পাতাগুলো
লেখাটি পিডিএফ ফর্মেটে ডাউনলোড করুন
২০০৮ - ফেব্রুয়ারী সংখ্যার হাইলাইটস
চলতি সংখ্যার হাইলাইটস