Comjagat.com-The first IT magazine in Bangladesh
  • ভাষা:
  • English
  • বাংলা
হোম > গ্রাফিক রিভার
লেখক পরিচিতি
লেখকের নাম: মো: জাকারিয়া চৌধুরী
মোট লেখা:৩৫
লেখা সম্পর্কিত
পাবলিশ:
২০০৯ - সেপ্টেম্বর
তথ্যসূত্র:
কমপিউটার জগৎ
লেখার ধরণ:
ফ্রিল্যান্স
তথ্যসূত্র:
ঘরে বসে ‍আয়
ভাষা:
বাংলা
স্বত্ত্ব:
কমপিউটার জগৎ
গ্রাফিক রিভার



কয়েক মাস আগে একটি লেখায় পাঁচটি মার্কেটপ্লেস নিয়ে গঠিত এনভ্যাটো (Envato) নামের একটি অস্ট্রেলীয় প্রতিষ্ঠানের পরিচয় তুলে ধরা হয়েছিল। সে লেখায় ThemeForest.net নামের একটি মার্কেটপ্লেস নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। যারা ওই লেখাটি পড়েননি তাদের জন্য বলছি, থিমফরেস্ট মার্কেটপ্লেসে একজন ডিজাইনার ওয়েবসাইটের টেম্পলেট বা পূর্ণাঙ্গ ডিজাইন বিক্রি করে আয় করতে পারেন। যারা ওয়েবসাইট ডিজাইনিংয়ে দক্ষ তাদের জন্য থিমফরেস্ট হতে পারে একটি চমৎকার আয়ের ক্ষেত্র। কিন্তু নতুন ডিজাইনাররা থিমফরেস্ট সাইটে খুব একটা সুবিধা করতে পারবেন না। এ সাইটে অনেক বিচার বিবেচনা করে একটি ডিজাইনকে সাইটে প্রকাশের অনুমতি দেয়া হয়। তবে নতুনদের হতাশ হবার কিছু নেই। তাদের জন্য এনভ্যাটোর রয়েছে আরেকটি চমৎকার মার্কেটপ্লেস-‘গ্রাফিক রিভার’ www GraphicRiver.net। এ লেখায় এ গ্রাফিক রিভারের বিস্তারিত নিয়ে আলোচনার প্রয়াস পাবো।

গ্রাফিক রিভার সাইট দেখতে হুবহু থিমফরেস্ট সাইটের মতো। প্রকৃতপক্ষে এনভ্যাটোর সব মার্কেটপ্লেসের বাহ্যিক দিক এবং অভ্যন্তরীণ নিয়মকানুন প্রায় একই। পাঁচটি মার্কেটপ্লেসের যেকোনো একটিতে রেজিস্ট্রেশন করে সব সাইটের মেম্বার হওয়া যায়। গ্রাফিক রিভার মার্কেটপ্লেসটি নতুনদের জন্য উপযোগী। এখানে আপনাকে সাইটের সম্পূর্ণ টেম্পলেট ডিজাইন করতে হবে না, বরং একটি সাইটের বিভিন্ন গ্রাফিক্স আলাদা আলাদাভাবে তৈরি করে বিক্রি করতে পারবেন। গ্রাফিক্স বলতে এখানে বোঝানো হচ্ছে- ওয়েবসাইটের ব্যাকগ্রাউন্ড, ব্যানার, বাটন, আইকন, রেজিস্ট্রেশন ও লগইন ফরম, বিজনেস কার্ড, নিউজলেটার ইত্যাদি বিভিন্ন ধরনের ডিজাইন।



একটি ডিজাইন তৈরি করে সাইটে জমা দেবার পর সাইট কর্তৃপক্ষ ডিজাইনটি প্রথমে যাচাইবাছাই করে দেখে নেয় কাজটি মানসম্মত কিনা। ডিজাইনটি সাইটের নির্দেশমতো তৈরি করা হলে, কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন বিষয় বিবেচনা করে ডিজাইনটির একটি দাম নির্ধারণ করে দেয়। ডিজাইনের ধরন ও কাজের পরিমাণের ওপর ভিত্তি করে দাম ১ ডলার থেকে শুরু করে ২০ ডলার পর্যন্ত হতে পারে। এরপর ডিজাইন বিক্রির ৪০% থেকে ৭০% অর্থ ডিজাইনারকে দেয়া হয়। নতুনদেরকে ৪০% অর্থ দেয়া হয় যা, বিক্রি বেড়ে যাওয়ার সাথে সাথে পর্যায়ক্রমে ৭৭ শতাংশ ওঠে। প্রথম অবস্থায় দাম শুনতে কম মনে হলেও আসলে একটি ডিজাইন একাধিক ক্লায়েন্টের কাছে বিক্রির সুযোগ রয়েছে। তাই ১ ডলার মূল্যের একটি সামান্য ব্যানার যদি ৪০ থেকে ৫০ বার বিক্রি হয়, তাহলে পরিশেষে মোট দাম নেহায়েত কম হয় না। এই ধরনের ছোটখাটো কাজ করতে একজন নতুন গ্রাফিক্স ডিজাইনারের এক দিনের বেশি লাগার কথা নয়।

সাইটের নেভিগেশন বা ব্যবহার পদ্ধতি খুবই সহজ এবং পরিকল্পিতভাবে সাজানো। সাইটের বামদিকের কলামের শুরুতেই রয়েছে বিভিন্ন বিভাগ, যাতে ক্লিক করে ওই বিভাগের সব ডিজাইন দেখা ও কেনা যায়। এখানে মূল বিভাগগুলো হচ্ছে : Graphics, Design Templates, Texture, Vectors, Add-ons, Isolated Objects এবং Icons। গ্রাফিক্স বিভাগে রয়েছে ব্যাকগ্রাউন্ড, বাটন, ফরম, ব্যানার এবং একটি ওয়েবসাইটকে সাজানোর বিভিন্ন উপকরণ। ডিজাইন টেম্পলেটস বিভাগে রয়েছে বিজনেস কার্ড, একটি প্রতিষ্ঠানের পরিচয় বহনকারী স্টেশনারি উপকরণের টেম্পলেট, ফ্লাইয়ার, রেজ্যুমে, ব্রুশিয়র, নিউজলেটার ইত্যাদি। টেক্সচার বিভাগে পাওয়া যায় বিভিন্ন ধরনের বস্ত্ত যেমন কাঠ, কাগজ, পাথর, প্রকৃতি, কংক্রিট, মেটাল, তরল বস্ত্ত, ফেব্রিক ইত্যাদির ছবি। এই ছবিগুলো সাধারণত একটি ডিজাইন তৈরি করার সময় ব্যাকগ্রাউন্ড ইমেজ হিসেবে ব্যবহার হয়। ভেক্টর বিভাগে পাওয়া যায় কার্টুন ক্যারেক্টার ও বিভিন্ন বস্ত্তর ভেক্টর ছবি, যা সাধারণত অ্যাডোবি ইলাস্ট্রেটর দিয়ে তৈরি করা হয়। অ্যাড-অন বিভাগে রয়েছে ফটোশপ এবং ইলাস্ট্রেটরের বিভিন্ন অ্যাকশন, ব্রাশ, স্টাইল, শেপ, টেক্সচার এবং প্যাটার্নের কালেকশন। আইসোলেটেড অবজেক্টস বিভাগে আমাদের প্রতিদিনের ব্যবহার্য বস্ত্তর গ্রাফিক্স পাওয়া যায়। সর্বশেষ আইকন বিভাগে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের নজরকাড়া আইকনের সমাহার, যা কমপিউটারের ডেস্কটপ সাজাতে বা একটি ওয়েবসাইটের ডিজাইনকে আকর্ষণীয় করতে ব্যবহার হয়। মোট কথা, গ্রাফিক রিভার সাইটের অসংখ্য বিভাগের মধ্য থেকে নিজের ইচ্ছেমতো যেকোনো ধরনের ডিজাইন তৈরি করে বিক্রি করা যায়।

ওয়েবসাইটের বাম দিকের কলাম বিভাগের পরের উল্লেখযোগ্য অংশগুলো হলো : Author Program, Referral Program, Asset Library, Forums এবং ব্লগ। ডিজাইনার হিসেবে কাজ শুরু করার আগে অথর প্রোগ্রাম অংশে সাইটের নিয়মকানুন ভালোভাবে জেনে নিতে হবে। তারপর একটি ছোটখাটো ক্যুইজে অংশ নিয়ে তাতে উত্তীর্ণ হতে হবে। ক্যুইজের উত্তরগুলো ‘হ্যাঁ’ এবং ‘না’-এর মধ্যেই সীমাবদ্ধ। নিয়মকানুন ভালোভাবে পড়ে নিলে পাঁচ মিনিটের মধ্যেই সব প্রশ্নের সঠিক উত্তর দেয়া সম্ভব। ডিজাইনার না হয়েও এই সাইট থেকে আয় করা সম্ভব রেফারেল প্রোগ্রামের মাধ্যমে। এনভ্যাটো মার্কেটপ্লেসের পাঁচটি সাইটের যেকোনো একটিতে একজন নতুন ক্রেতাকে নিয়ে আসলে, ওই ক্রেতা সবার আগে যে পরিমাণ অর্থ সাইটে ডিপোজিট বা জমা করবে তার ৩০% আপনি পাবেন। কোনো ডিজাইন কেনার আগে এই সাইটে কমপক্ষে ২০ ডলার ডিপোজিট করতে হয়। অর্থাৎ একজন নতুন ক্রেতার মাধ্যমে আপনি ৬ থেকে ৩০ ডলার পর্যন্ত আয় করতে পারেন।

একটি ডিজাইন তৈরি করার সময় যদি কোনো ধরনের ছবি সংযোগের প্রয়োজন হয়, তাহলে Asset Library থেকে তা বিনামূল্যে সংগ্রহ করতে পারবেন। এ সাইটে কপিরাইটের নিয়মকানুন খুব কড়াকড়িভাবে মেনে চলা হয়। তাই অন্য যেকোনো সাইট থেকে ছবি সংগ্রহ করে তা ডিজাইনের সাথে সরাসরি সংযোগ করা যাবে না। এর জন্য হয় ছবিটি কিনতে হবে অথবা ছবির মালিকের যথাযথ অনুমতি সাপেক্ষে ব্যবহার করতে হবে। তবে সবচেয়ে ঝামেলাবিহীন হচ্ছে সাইটির অ্যাসেট লাইব্রেরি থেকে ছবি সংগ্রহ করা।

সাইটের নিয়মকানুন এবং বিভিন্ন প্রয়োজনীয় তথ্য জানার জন্য ফোরাম অংশে নিয়মিত ভিজিট করুন। আর এনভ্যাটো কর্তৃপক্ষের পরিচালিত ব্লগে পাবেন গ্রাফিক রিভার সম্পর্কে বিভিন্ন ধরনের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য, বিভিন্ন প্রতিযোগিতার খবর এবং প্রতিমাসে একটি গ্রাফিক্স বিনামূল্যে ডাউনলোডের সুযোগ। গ্রাফিক রিভার সাইটে এই মূহুর্তে আইকন তৈরির একটি প্রতিযোগিতা চলছে, যাতে প্রথম ও দিবতীয় স্থান অধিকারীকে ২০০ ডলার করে পুরস্কার দেয়া হবে।



ওয়েবসাইটে লগইন করার পর উপরের অংশে কয়েকটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ লিঙ্ক পাওয়া যায়। এগুলো হচ্ছে : Account, Bookmarks, Earning, Upload এবং Deposit। অ্যাকাউন্ট অংশটি আরো কয়েকভাগে বিভক্ত : Profile, Portfolio, Downloads, Earning, Statements এবং Edit। আপনার প্রোফাইল এবং পোর্টফোলিও অংশটি যেকোনো মেম্বার দেখতে পারবে। প্রোফাইল অংশে নিজের সম্পর্কে বিস্তারিত লিখবেন, যাতে ক্লায়েন্ট আপনার ডিজাইনের পদ্ধতি সম্পর্কে ভালো ধারণা পায়। আপনি যেসব ডিজাইন তৈরি করবেন তা পোর্টফোলিও অংশে প্রদর্শন করা হবে। যদি অন্য কারো ডিজাইন কিনে থাকেন, তাহলে ডাউনলোড অংশ থেকে তা ডাউনলোড করতে পারবেন। আর্নিং অংশে কোন মাসে কত আয় করলেন, তার বিস্তারিত বর্ণনা দেখতে পাবেন এবং এই অংশ থেকে আয় করা অর্থ তুলতে পারবেন। স্টেটমেন্ট অংশে সাইট থেকে আপনার আয়/ব্যয়ের সম্পূর্ণ বিবরণ পাবেন।

ডিজাইন তৈরির নিয়ম

গ্রাফিক রিভারের জন্য ডিজাইন তৈরি করার সময় অনেক বিষয় খেয়াল রাখতে হবে। অন্যথায় কর্তৃপক্ষ ডিজাইনটি গ্রহণ করবে না। বিষয়গুলো হলো :

০১. ডিজাইনের প্রত্যেকটি উপাদানকে আলাদা আলাদা লেয়ারে তৈরি করুন,

০২. দুই বা ততোধিক লেয়ারকে মার্জ বা এক লেয়ারে পরিণত করবেন না,

০৩. লেয়ারগুলোকে সুবিন্যস্ত রাখার জন্য গ্রুপ ব্যবহার করুন। ধরা যাক, আপনি কয়েক ধরনের বাটনের একটি সেট তৈরি করছেন। এক্ষেত্রে একই ধরনের বাটনকে একই গ্রুপে রাখতে পারেন,

০৪. লেয়ারে বিভিন্ন ইফেক্ট ব্যবহার করলে তা কখনও রেস্টারাইজ করবেন না,

০৫. লেয়ার ও গ্রুপের অর্থবহ নাম দিন,

০৬. সব কমপিউটারে থাকে এমন ফন্ট ব্যবহার করুন। যেমন- Arial, Tahoma, Times New Roman, Verdana ইত্যাদি। আর যদি অন্য কোনো নতুন ফন্ট ব্যবহার করার প্রয়োজন পড়ে, তাহলে ওই ফন্টটি কোন ওয়েবসাইট থেকে সংগ্রহ করা যাবে, তা অবশ্যই উল্লেখ করতে হবে। বিনামূল্যে ফন্ট সংগ্রহের জন্য www.dafont.com সাইটে ভিজিট করতে পারেন। বিনামূল্যে পাওয়া যায় এমন ফন্টের ক্ষেত্রেও তার উৎস উল্লেখ করতে হবে,

০৭. কোনো কারণে ডিজাইনটি গ্রহণযোগ্য না হলে কর্তৃপক্ষ তার কারণ ই-মেইলের মাধ্যমে আপনাকে জানাবে। এক্ষেত্রে সেই ভুলগুলো সংশোধন করে আবার ডিজাইনটি জমা দিতে পারবেন।

০৮. কোনো ডিজাইন যদি সাইটের অন্য আরেকজনের ডিজাইনের সাথে মিলে যায় তাহলেও কর্তৃপক্ষ আপনার ডিজাইনটি গ্রহণ করবে না। তাই যেকোনো ডিজাইন তৈরির সময় তাতে বৈচিত্র্য ও নতুনত্ব আনার চেষ্টা করুন।

ডিজাইন জমা দেবার নিয়ম

ডিজাইন তৈরি করার পর তা জমা দিতে সাইটের উপরের অংশ থেকে Upload নামের লিঙ্কে ক্লিক করুন। ডিজাইন জমা দেবার আগে ক্যুইজে অবশ্যই উত্তীর্ণ হতে হবে। এরপর Upload অংশে প্রত্যেকটি বিভাগের জন্য Instructions, New BETA Upload এবং Old Style Upload নামের তিন ধরনের বাটন দেখতে পাবেন। প্রথমে ইনস্ট্রাকশন অংশটি ভালোভাবে পড়ে নিন এবং New BETA Upload বাটনে ক্লিক করে আপলোড শুরু করুন। এই অংশে আপলোড করতে সমস্যা হলে Old Style Upload বাটনে ক্লিক করুন। আলোকপাত করার নিয়মগুলো হচ্ছে নিম্নরূপ :

* প্রথমেই ডিজাইনটির একটি ভালো নাম এবং তার বর্ণনা লিখুন। এতে কোনো ছবি বা ফন্ট ব্যবহার করলে তা যে ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে তার পূর্ণাঙ্গ লিঙ্ক এখানে দিন।

* এবার ফাইল আপলোডের পালা। সর্বমোট ৪ ধরনের ফাইল আপলোড করতে হবে। এগুলো হলো :

০১. ইমেজ প্রিভিউ : ডিজাইনটির ৫৯০ পিক্সেল প্রস্থের একটি JPG ছবি এই অংশে দিতে হবে। এক্ষেত্রে যেকোনো উচ্চতা হতে পারে।

০২. থাম্বনেইল : ডিজাইনটির ৮০x৮০ পিক্সেলের একটি ছোট JPG ছবি দিতে হবে।

০৩. High এবং JPG : ডিজাইনটির মূল মাপের একটি উঁচু রেজ্যুলেশনের JPG ছবি দিতে হবে। ভেক্টরের ক্ষেত্রে প্রস্থ সর্বনিম্ন ১২০০ পিক্সেল হতে হবে। এবং ০৪. Main File(s) : এরপর ফটোশপ বা ইলাস্ট্রেটরের সব ফাইলকে জিপ করে দিতে হবে। কোনো ক্রেতা ডিজাইনটি কেনার পর এই ফাইলটিকেই ডাউনলোড করবে।

ক্যাটাগরি : ডিজাইনটি সুনির্দিষ্ট কোন বিভাগের অন্তর্ভুক্ত তা উল্লেখ করুন।

ইমেজ রেজ্যুলেশন : ডিজাইনটিকে কত রেজ্যুলেশনে তৈরি করেছেন তা উল্লেখ করুন।

লেয়ার ৬ : ডিজাইনে বিভিন্ন লেয়ার থাকলে Yes সিলেক্ট করুন।

মিনিমাম অ্যাপ্লিকেশন ভার্সন : ফটোশপ বা ইলাস্ট্রেটরের কোন ভার্সন ব্যবহার করেছেন তা উল্লেখ করুন। গ্রহণযোগ্য ভার্সনগুলো হচ্ছে- সিএস, সিএস২, সিএস৩ এবং সিএস৪। ট্যাগ অংশে ডিজাইনটির যথাযথ ট্যাগ বা বৈশিষ্ট্য উল্লেখ করুন, যা সার্চ করার সময় কাজে লাগবে।

কমেন্টস ফর দি রিভিউআর : এই অংশটি হচ্ছে সাইটের কর্তৃপক্ষকে মেসেজ দেবার জন্য। আপনার তৈরি করা ডিজাইন সম্পর্কে কোনো কিছু বলার থাকলে তা এই অংশের মাধ্যমে তাদেরকে জানাতে পারবেন।

সবশেষে আপলোড বাটনে ক্লিক করে কাজটি জমা দিন। জমা দেবার পর আপনার ডিজাইনটি কর্তৃপক্ষের লিস্টে কততম স্থানে রয়েছে তা দেখতে পাবেন। আপলোড করার এক থেকে দুই দিনের মধ্যে ডিজাইনটি যাচাইবাছাই করা হবে। ডিজাইনটি গ্রহণ বা বাতিল হলে তা আপনাকে ই-মেইলের মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হবে।

আয়ের অর্থ উত্তোলনের জন্য এই সাইটে তিনটি পদ্ধতি রয়েছে- পেপাল, মানিবুকার্স এবং ইন্টারন্যাশনাল মানি ট্রান্সফার। ন্যূনতম আয় ৫০ ডলার হলেই পেপাল ও মানিবুকার্স দিয়ে উত্তোলন করতে পারবেন। তৃতীয় পদ্ধতির ক্ষেত্রে ন্যূনতম আয় হতে হবে ৫০০ ডলার।

গ্রাফিক রিভার তথা এনভ্যাটো মার্কেটপ্লেসে নিয়মকানুন কড়াকড়িভাবে মেনে চলার কারণে এই সাইটগুলোতে সবসময় উন্নতমানের ডিজাইন পাওয়া যায়। আর হয়ত এ কারণেই ক্রেতা এবং বিক্রেতা মিলে মার্কেটপ্লেসে দুই লাখেরও বেশি ব্যবহারকারী রয়েছেন।

কজ ওয়েব

ফিডব্যাক : zakaria.cse@hotmail.com

পত্রিকায় লেখাটির পাতাগুলো
লেখাটি পিডিএফ ফর্মেটে ডাউনলোড করুন
চলতি সংখ্যার হাইলাইটস