Comjagat.com-The first IT magazine in Bangladesh
  • ভাষা:
  • English
  • বাংলা
হোম > উইন্ডোজ লাইভ অ্যাসেনসিয়াল প্যাকেজ অবমুক্ত
লেখক পরিচিতি
লেখকের নাম: লুৎফুন্নেছা রহমান
মোট লেখা:১৩৬
লেখা সম্পর্কিত
পাবলিশ:
২০০৯ - নভেম্বর
তথ্যসূত্র:
কমপিউটার জগৎ
লেখার ধরণ:
সফটওয়্যার
তথ্যসূত্র:
সফটওয়্যার
ভাষা:
বাংলা
স্বত্ত্ব:
কমপিউটার জগৎ
উইন্ডোজ লাইভ অ্যাসেনসিয়াল প্যাকেজ অবমুক্ত
উইন্ডোজ ৭-এ যেসব নতুন কৌশল ও উন্নয়ন সাধন করা হচ্ছে, সেসব বিবেচনা করে অনেকেই হয়তো বিস্ময়ে অভিভূত হবেন, মাইক্রোসফট সত্যি সত্যি পরিকল্পনা করেছে তার কিছু কোর ফিচারকে রিমুভ করার যেগুলো আমরা সচরাচর ব্যবহার করি। মাইক্রোসফট তার ওএস-এর বেশ বড় একটি অংশ আনবান্ডেল করেছে যেগুলো যথেষ্ট সুপরিচিত। এই বান্ডেলে রয়েছে উইন্ডোজ মুভিমেকার, উইন্ডোজ মেইল এবং উইন্ডোজ মেসেঞ্জারের মতো ইউটিলিটি। ফলে এগুলো বর্তমানে উইন্ডোজের স্ট্যান্ডার্ড প্যাকেজের অংশ হিসেবে গণ্য হবে না।

কিছুটা একচেটিয়া ব্যবসায় করার অভিযোগ এবং কিছুটা ডেস্কটপ ও ওয়েবভিত্তিক কমপিউটিংয়ের ক্ষেত্র বিকশিত হবার কারণে এ প্রোগ্রামগুলোসহ আরো কয়েকটি প্রোগ্রামকে আলাদা করে একটি প্যাকেজ উপস্থাপন করে, যা উইন্ডোজ লাইভ অ্যাসেনসিয়াল হিসেবে পরিচিত। ব্যবহারকারীরা তাদের পছন্দ অনুযায়ী যেকোনো প্রোগ্রাম ফ্রি ডাউনলোড করে ইনস্টল করতে পারবেন।

উইন্ডোজ লাইভ নাম পরিবেষ্টন করে আছে বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইট, অনলাইন সার্ভিস এবং অফলাইন অ্যাপ্লিকেশন। মাইক্রোসফটের অন্যান্য কিছু সার্ভিস লাইভ নাম ব্যবহার করায় এটি বেশ বিভ্রান্তি সৃষ্টি করেছে ব্যবহারকারীদের মনে। যাহোক উইন্ডোজ লাইভকে ডাউনলোড করার জন্য download,live.com সাইটে ডিজিট করুন। ১৩৩ মে. বা.-এর এই ইনস্টলারকে ডাউনলোড করা যাবে ফ্রি। কোন উইন্ডোজ লাইভ প্রোগ্রামকে ব্যবহার করতে চান, তা এখান থেকে সিলেক্ট করতে পারবেন। আপনি কী ব্যবহার করছেন, তার ওপর ভিত্তি করে বেশ কিছু অপশন পাবেন উইন্ডোজ এক্সপি, ভিসতা বা উইন্ডোজ ৭-এর জন্য। উদাহরণ টেনে বলা যায়, উইন্ডোজ লাইভ মুভি মেকার এক্সপিতে নেই।

উইন্ডোজ লাইভ মেইল



উইন্ডোজ লাইভ অ্যাসেনসিয়াল প্যাকেজে সম্ভবত সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং কার্যকর কম্পোনেন্ট হলো উইন্ডোজ লাইভ মেইল। এটি ভিসতার বিল্ট-ইন উইন্ডোজ মেইল এবং এক্সপি’র আউটলুট এক্সপ্রেসের অ্যাপ্লিকেশনের প্রতিস্থাপন। এই নতুন প্রোগ্রামটি পূর্বতন প্রোগ্রাম থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন। কর্পোরেট মেইল ক্লায়েন্ট আউটলুকের পুরো ফাংশনালিটি ও ফিচারের কাছাকাছি বৈশিষ্ট্য এতে পাওয়া যাবে। উইন্ডোজ লাইভ মেইলের সাথে রয়েছে ক্যালেন্ডার টাস্ক। আপনি উইন্ডোজ লাইভ মেইলের মাধ্যমে মাল্টিপল স্ট্যান্ডার্ডের পপ অ্যাকাউন্ট ডাউনলোড করতে পারবেন, যেমন- হটমেইল, জি-মেইল এবং অন্যান্য অনলাইন প্রোভাইডারের সার্ভিস।

উইন্ডোজ লাইভ ম্যাসেঞ্জার ২০০৯



উইন্ডোজ লাইভ ম্যাসেঞ্জার ২০০৯-এ যুক্ত করা হয়েছে বেশ কিছু নতুন স্যোশাল ফিচার। কাস্টোমাইজেশন ফিচারকে যথেষ্ট উন্নত করা হয়েছে। এর ইন্টারফেসটি চমৎকারভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে এবং ফেবারিট হিসেবে কার্যাদি অর্পণ করতে পারবেন, যেটি আপনার কনট্যাক্ট লিস্টের শীর্ষে স্থায়ীভাবে থাকবে। স্ট্যাটাস নির্দেশক সাদামাটা এবং আরো স্পষ্টভাবে চারদিকে ফ্রেমবেষ্টিত রঙিন ছবি দেখা যাবে এতে। এই ইউটিলিটির ফটো শেয়ারিং ফিচার বেশ সহজতর।

উইন্ডোজ লাইভ ফটো গ্যালারি



ফটো গ্যালারি এক বিস্ময়কর শক্তিশালী ফিচার সেট। এটি ব্রাউজিং স্টোর করার ক্ষেত্রে যেমন চমৎকার, তেমনি চমৎকারভাবে কাজ করতে পারে ফটো অর্গানাইজিংয়ের ক্ষেত্রেও। ফটো ডিসপ্লে করে থাম্বনেইলের মতো করে, যা দেখতে উইন্ডোজ এক্সপ্লোরারের স্ট্যান্ডার্ড ভিউয়ের মতো চমৎকার। আপনি অ্যামবেডেড EXIF ডাটার মাধ্যমে ফটো সর্ট করতে পারবেন। গৃহীত ডাটাকে ট্যাগ করা যাবে স্বতন্ত্রভাবে।

রাইটার



উইন্ডোজ লাইভ রাইটার দিয়ে ব্লগ পোস্ট কম্পোজ করতে পারবেন এবং কনটেন্টকে ওয়েবসাইটে পাবলিশ করতে পারবেন, যখন অফলাইনে থাকবেন। এর বেসিক কম্প্যাটিবিলিটি ব্যবহারিকভাবে ওয়ার্ডপ্যাডকে অনাবশ্যকে পরিণত করেছে। এটি প্লেইন টেক্সটকেও ছাড়িয়ে গেছে এবং দ্রুতগতিতে সহজেই ফটো গ্যালারি তৈরির সুবিধা এতে রয়েছে, যেখানে রাখা যাবে স্বচ্ছ বর্ডার। পোস্টে ভিডিও যুক্ত করার সুবিধা পাবেন। অন্যান্য স্যোশাল মিডিয়া সাইটের সাথে থাকায় এর কনটেন্টকে আরো সমৃদ্ধ করা যায়। এটি ইন্টিগ্রেট করতে পারে লাইভ স্পেস এবং অন্যান্য উইন্ডোজ লাইভ সার্ভিসের সাথে। তবে ব্লগার ওয়ার্ডপ্রেস, লাইভ জার্নাল, টাইপপ্যাড, ইউটিউব ও অন্যান্য টুলের সাথে ভালোই কাজ করতে পারে। আপনি ব্লগ পোস্টকে গ্রাফিক্যালি এডিট করতে পারেন বা এইচটিএমএল কোডকে টোয়েকিং করতে পারবেন প্রয়োজনে। এগুলো পাবলিশ করার আগে এক ক্লিকে প্রিভিউও করা যাবে।

মুভিমেকার



উইন্ডোজ মুভিমেকারকে লাইভ ফ্যামিলিতে আনা হয়েছে। নতুন ভার্সনকে আরো উন্নত ও কমানো ফিচারের মিশ্রণে তৈরি করা হয়েছে এটি। উইন্ডোজ লাইভ অ্যাসেনসিয়ালে এটিই একমাত্র অ্যাপ্লিকেশন, যা কারিগরিভাবে বেটা পর্যায়ে রয়েছে এবং এটি উইন্ডোজ এক্সপিতে ব্যবহার করা যায় না। লাইভ মুভি মেকারের রয়েছে অফিস-স্টাইল রিবন ইন্টারফেস। এর টুল ট্যাব লেবেল করা হয়েছে Home, Visual Effects, Edit ইত্যাদি হিসেবে। আগের ভার্সনটি দ্রুত এডিটিংয়ের সহায়ক ছিল। যেমন শর্ট মুভি এডিটিংয়ের বা কোনো প্রোজেক্ট এডিটিংয়ের কাজ সাবলীলভাবে করা যেত। ক্লিপগুলো সাজানো হয়েছে ডানদিকের প্যানে, যা প্রচুর পরিমাণে উইন্ডোজ স্পেস নষ্ট করে। এছাড়া আউটপুটের মান এবং ফরমেট অপশনে যথেষ্ট সীমাবদ্ধতা রয়েছে।

ফ্যামিলি সেফটি



অভিভাবকেরা পরিবারের সন্তানদের নিরাপত্তা বিধানের জন্য এই টুল ব্যবহার করতে পারেন। এই টুল শিশুদের কমপিউটার ব্যবহারের আচরণবিধি এবং অনলাইন ব্যবহারের আচরণবিধি মনিটর করে। অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের জন্য কিছু বিষয় সীমাবদ্ধ করতে পারেন যেসব সাইটে তারা ভিজিট করতে পারবে। চ্যাটের ক্ষেত্রেও শর্তারোপ করতে পারবেন। আপনি শিশুদের কমপিউটারের কার্যকলাপের বিস্তারিত লগ দেখতে পারবেন এবং বিশ্বের যেকোনো প্রান্ত থেকে পারমিশন কনফিগার করতে পারবেন যেকোনো অবস্থায়- যদি আপনার নিজস্ব লাইভ আইডি সেটআপ করা থাকে প্যারেন্টাল অথরিটি হিসেবে।

উইন্ডোজ লাইভ অ্যাসেনসিয়ালে আরো যেসব ছোটখাটো ইউটিলিটি যুক্ত রয়েছে :

লাইভ টুলবার :



ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারের সাথে একে সমন্বিত করা হয়েছে। এতে যুক্ত করা হয়েছে হটমেইল ইনবক্স এবং আপলোড করা লাইভ ফটোর জন্য ফ্লাই আউট মেনু। স্যোশাল নেটওয়ার্ক বুকমার্ক শেয়ার করার সুবিধা এতে রয়েছে।

সিলভার লাইট :

ফ্ল্যাশের বিকল্প হিসেবে মাইক্রোসফটের টুল, যা নির্দিষ্ট ওয়েবসাইটে অ্যানাবল করতে পারে মিডিয়া ও স্ট্রিমিং ভিডিও।

আউটলুক কানেক্টর :

এটি হটমেইল সহযোগে আউটলুক ও অফিস লাইভ প্লাগইন উইন্ডোজ লাইভ মোবাইল এবং অনলাইন অ্যাপ্লিকেশনে সম্প্রসারিত হয়েছে এছাড়াও রয়েছে :

* প্রোফাইল, * স্কাইড্রাইভ, * পিপল, * ফ্রেমলেট, * স্পেসেস, * ওয়ানফেয়ার।

কজ ওয়েব

ফিডব্যাক : swapan52002@yahoo.com
পত্রিকায় লেখাটির পাতাগুলো
লেখাটি পিডিএফ ফর্মেটে ডাউনলোড করুন
লেখাটির সহায়ক ভিডিও
চলতি সংখ্যার হাইলাইটস