Comjagat.com-The first IT magazine in Bangladesh
  • ভাষা:
  • English
  • বাংলা
হোম > অ্যামেইজিং অ্যাডভেঞ্চারস অ্যারাউন্ড দ্য ওয়ার্ল্ড
লেখক পরিচিতি
লেখকের নাম: সৈয়দ হাসান মাহমুদ
মোট লেখা:৫৪
লেখা সম্পর্কিত
পাবলিশ:
২০০৯ - নভেম্বর
তথ্যসূত্র:
কমপিউটার জগৎ
লেখার ধরণ:
গেম
তথ্যসূত্র:
গেমের জগৎ
ভাষা:
বাংলা
স্বত্ত্ব:
কমপিউটার জগৎ
অ্যামেইজিং অ্যাডভেঞ্চারস অ্যারাউন্ড দ্য ওয়ার্ল্ড



মিনি গেমস পাবলিশ করার মধ্যে যে গেম কোম্পানিগুলোর নাম সবার আগে আসে সেগুলো হচ্ছে- পপকাপ গেমস, গেম হাউস ও বিগ ফিশ গেমস। এই প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে আপনি নিত্যনতুন গেম পাবেন। এখান থেকে সব গেমের এক ঘণ্টার ট্রায়াল ভার্সন ফ্রিতে নামিয়ে নিতে পারবেন। এসব ওয়েবসাইটে আপনি বিভিন্ন ক্যাটাগরির গেম পাবেন। এগুলো হলো- পাজল গেম, হিডেন অবজেক্ট ফাইন্ডিং, টাইম ম্যানেজমেন্ট গেম, অ্যাডভেঞ্চার গেম, স্ট্র্যাটেজি গেম, আর্কেড গেম, অ্যাকশন গেম, ওয়ার্ড পাজল গেম, কার্ড গেম, বোর্ড গেম ইত্যাদি। এবার যে গেমটি নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে সেটি হলো অ্যাডভেঞ্চার ও হিডেন ফাইল ফাইন্ডিং ক্যাটাগরির গেম। গেমটির নাম হচ্ছে অ্যামেইজিং অ্যাডভেঞ্চারস অ্যারাউন্ড দ্য ওয়ার্ল্ড। গেমটি ডেভেলপ করেছে স্পিনটপ গেমস এবং এটি পপকাপ গেমের ব্যানারে পাবলিশ হয়েছে।

গেমে গেমারকে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে ভ্রমণ করে সেখান থেকে লুকানো জিনিস খুঁজে বের করতে হবে। গেমের নিচের মেনুতে ১০টি করে জিনিসের নাম দেয়া থাকবে এবং একটি স্থানের দৃশ্য দেয়া থাকবে। এই দৃশ্যপটেই নানা ধরনের জিনিস লুকানো থাকবে বা এমনভাবে দেয়া থাকবে যা সহজে চোখে পড়ে না। গেমারকে একে একে ১০টি জিনিসই খুঁজে বের করে তাতে মাউস পয়েন্টার নিয়ে ক্লিক করতে হবে। তাহলেই প্রতিটি জিনিসের জন্য আলাদা আলাদা পয়েন্ট পাওয়া যাবে। তবে ভুল জিনিসে বেশিবার ক্লিক করলে পয়েন্ট কাটা যাবে। এছাড়া কোনো জিনিস যদি খুঁজে পেতে সক্ষম না হন তাহলে সাহায্য নেয়ার জন্য আলাদা বাটন আছে, যা ক্লিক করলে লুকানো জিনিসটির ওপর আলোকচ্ছটা দেখা যাবে। তখন সেখান থেকে জিনিসটি খুঁজে পেতে সুবিধা হবে। তবে প্রতিবার এই সাহায্য নেয়ার সাথে সাথে পয়েন্ট কাটা যাবে। তাই সাহায্য না নিয়ে খেলাই উত্তম। হিডেন অবজেক্ট ফাইন্ডিং ক্যাটাগরির আরো কিছু গেমের নাম হচ্ছে : বিগ সিটি অ্যাডভেঞ্চার- সানফ্রানসিসকো, বিটুইন দ্য ওয়ার্ল্ডস, লস্ট রেলম- লিজেসি অব দ্য সান প্রিন্স, লস্ট সিক্রেটস- বারমুড ট্রায়াঙ্গল ইত্যাদি।



গেমে গেমারকে একজন প্রত্নতাত্ত্বিক হয়ে খেলতে হবে। গেমের কাহিনী মূলত একটি মহামূল্যবান হীরাকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে। গেমের এই হীরাটির নাম হচ্ছে ওয়ার্ল্ড ডায়মন্ড এবং এটি এযাবৎকালের জানা সব হীরার থেকে মূল্যবান, বড় ও আকর্ষণীয়। এই হীরা কোন স্থানে লুকিয়ে আছে তার নির্দেশনা ‍আকাঁ রয়েছে একটি নকশায় এবং নকশাটি আবার আলাদা আলাদা ভাগে বিভক্ত, কিন্তু মিউজিয়ামের সংগ্রহে সেই নকশার সব অংশ নেই, ফলে গেমারের ওপর দায়িত্ব পড়বে সারাবিশ্ব তন্ন তন্ন করে খুঁজে সেই নকশার সব খন্ড একসাথে করে সেই মহামূল্যবান ওয়ার্ল্ড ডায়মন্ড খুঁজে বের করা। তাই মিউজিয়ামের হয়ে গেমারকে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে প্রায় ২৫টি মিশন সম্পন্ন করতে হবে। প্রথম মিশন শুরু হবে গ্রীস থেকে। এখানে ভেনিস শহরের একটি অংশ থেকে আপনাকে ১০টি বা তারও বেশি লুকানো জিনিস খুঁজে বের করতে হবে এবং সব জিনিস পাওয়ার পর আরেকটি পাজল গেমের সমাধান করতে হবে, তাহলেই নকশার একটি অংশ খুঁজে পাওয়া যাবে। প্রতি মিশনের শেষে পাজল গেমগুলো আলাদা আলাদা। কোনো পাজল গেমে পাশাপাশি দুটো ছবি দেয়া হবে এবং দুটো ছবির নিচে মেনুতে কিছু আইটেম বা জিনিস (যেমন-দেয়ালঘড়ি, বোতল, তলোয়ার, বিভিন্ন ফল, বাক্স ইত্যাদি) দেয়া থাকবে এবং গেমারকে লক্ষ করতে হবে কোন ছবিতে কোন জিনিসটি নেই। এছাড়া কোনো গেম থাকবে আলাদা আলাদা খন্ডে বিভক্ত কোনো ছবিকে জোড়া দিয়ে একটি ছবি বানানো। মজার ব্যাপার হচ্ছে গেমটি খেলে অনেক সতর্ক ও বিচক্ষণ হতে পারবেন। এছাড়া মিশন শেষে গেমারের জার্নালে ওই স্থান সম্পর্কে বিভিন্ন জরুরি তথ্য দেয়া হবে, যার ফলে বিশ্বের বিভিন্ন স্থাপনা ও শহর সম্পর্কে আপনার জ্ঞানের পরিধি নিঃসন্দেহে বাড়বে। গেমারকে দিবতীয় ও তৃতীয় মিশন খেলতে হবে লন্ডনে। এভাবে বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় স্থানগুলোতে গেমারকে অভিযান চালাতে হবে নকশার খোঁজে। এছাড়া গেমের প্রতিটি স্টেজে দুটো করে মোট ৫০টি জেমস বা রত্ন লুকানো থাকবে, যদি গেমার সব রত্ন খুঁজে পায় তাহলে মূল মেনুতে আরো দুটি গেম মোড আনলক হবে। তখন মূল গেম শেষ হওয়ার পর সেই দুটি আনলক হওয়া মোডে গেমটি খেলতে পারবেন। আনলক হওয়া গেম মোড দুটো হচ্ছে- আনলিমিটেড সিক অ্যান্ড ফাইন্ড ও স্পট দ্য ডিফারেনসেস। আনলিমিটেড সিক অ্যান্ড ফাইন্ড মোডে কয়টি জিনিস খুঁজে বের করতে হবে তা নির্দিষ্ট করে দেয়া থাকবে না। এখানে বিভিন্ন স্থানে প্রায় ২১০০ লুকানো জিনিস বা অবজেক্ট দেয়া আছে তা গেমারকে খুঁজে বের করে পয়েন্ট অর্জন করতে হবে।

গেমটি খেলার জন্য তেমন ভালোমানের পিসির দরকার পড়বে না। গেমটি উইন্ডোজ এক্সপি, ভিসতা ও উইন্ডোজ সেভেনে চলতে সক্ষম। গেমটি খেলার জন্য পেন্টিয়াম টু-৩৫০ মেগাহার্টজ, ১২৮ মেগাবাইট র্যানম ও ডিরেক্ট-এক্স ৭.০ লাগবে। এছাড়া গেমটির জন্য হার্ডডিস্কে মাত্র ৪০.৬ মেগাবাইট জায়গার প্রয়োজন পড়বে।

.......................................................................................................

চিটকোড

এইজ অব অ্যাম্পায়ার ৩

গেম খেলাকালীন সময় Enter চাপলে একটি চিট উইন্ডো আসবে। সেখানে নিচের চিটকোডগুলো প্রয়োগ করে দিলেই কাঙ্ক্ষিত ফল পাওয়া যাবে।

Result - Code

10,000 Coin
- Give me liberty
orgive me coin
10,000 food - Medium Rare Please
10,000 wood -
10,000 experience points - Nova & Orion
Disable fog of war - X marks the spot
Win single player mission - this is too hard
100x gather/build rates - speed always wins
Spawns Mediocre Bombard at Home City gather point
- Ya gotta make do with what ya got
Spawn big red monster - truck tuck tuck tuck
“Musketeer’ed!” when killed by Musketeers
- Sooo Good

এডভেন্ট রাইজিং

গেম খেলার সময় Tab বাটন চাপলে একটি চিট কনসোল সক্রিয় হবে। সেখানে নিচের চিটকোডগুলো প্রয়োগ করে দিলেই হবে।

Code Result

God = God mode
BadAss = All skills at max
Invincible = One hit kills
Useammo = Unlimited ammo
Teleport = Teleport to the location of the crosshair
Suicide = Kill yourself
PlayersOnly = Freeze all objects
Blizzow 1 = Set Weapons and Power to max
Blaster = Gives H.A.Z.E weapon
Pistol = Gives Pistol
XJ9 = Gives XJ9 weapon
Launcher = Gives Talmage weapon
SeekerPistol = Gives Talon weapon
PulseGun = Gives Acolyte weapon
SeekerXJ9 = Gives Darkfire Weapon
SeekerMicrowaveGun = Gives Discord weapon
Assault = Gives Kaull weapon
SeekerLauncher = Gives Fury weapon
Photon = Gives Stalker weapon

কজ ওয়েব

ফিডব্যাক : shmt_15@yahoo.com
পত্রিকায় লেখাটির পাতাগুলো
লেখাটি পিডিএফ ফর্মেটে ডাউনলোড করুন
লেখাটির সহায়ক ভিডিও
চলতি সংখ্যার হাইলাইটস