Comjagat.com-The first IT magazine in Bangladesh
  • ভাষা:
  • English
  • বাংলা
হোম > ওরাকল ডাটাবেজ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন
লেখক পরিচিতি
লেখকের নাম: মো: ইফতেখারুল আলম
মোট লেখা:৬
লেখা সম্পর্কিত
পাবলিশ:
২০১১ - মার্চ
তথ্যসূত্র:
কমপিউটার জগৎ
লেখার ধরণ:
ওরাকল
তথ্যসূত্র:
অ্যাডমিনিস্ট্রেশন
ভাষা:
বাংলা
স্বত্ত্ব:
কমপিউটার জগৎ
ওরাকল ডাটাবেজ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন


(পূর্ব প্রকাশিতের পর)

গত আলোচনায় বিভিন্ন স্টোরেজ স্ট্রাকচার এবং এদের মধ্যে পরস্পর সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা করা হয়েছিল। এবারকার আলোচনায় আলোকপাত করা হয়েছে ডাটা স্টোরেজের বিভিন্ন মেথড ও তাদের সাথে সম্পর্কিত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, ইনভেন্স, ইন্টিগ্রিটি কনটেন্ট নিয়ে।

ডাটাবেজ টেবিল ব্যবস্থাপনা :

ওরাকল ডাটাবেজে ডাটা সংরক্ষণের বিভিন্ন মেথড রয়েছে। যেমন : রেগুলার টেবিল, পার্টিশন টেবিল, ইনডেক্স অর্গানাইজড টেবিল, ক্লাস্টার টেবিল।

রেগুলার টেবিল :

সাধারণত আমরা যেসব টেবিলে ডাটা সংরক্ষণ করি তা-ই হলো রেগুলার টেবিল। ডাটাবেজ অ্যাডমিনিস্ট্রেটরের ওপর টেবিলের রোগুলো হার্ডড্রাইভের কোথায় কোথায় বিতরণ হবে তার খুব কমই নিয়ন্ত্রণ থাকে। টেবিলের অ্যাক্টিভিটির ওপর নির্ভর করে রোগুলো যেকোনো অর্ডারে সংরক্ষিত হয়।



পার্টিশন টেবিল :

বড় টেবিলে যেখানে ব্যাপক পরিমাণ প্রসেস একই সময় সংঘটিত হয়ে ডাটা ম্যানুপুলেট করে সেই সব টেবিলে এধরনের টেবিল দেখতে পাওয়া যায়। পার্টিশন টেবিলের সারিকে একাধিক অংশে বিভক্ত করে হ্যাস, কম্পোজিট অথবা লিস্ট পার্টিশনের মাধ্যমে সংরক্ষণ করা হয়। পার্টিশন টেবিলের বিভিন্ন অংশ আলাদাভাবে একেকটি সোমেন্ট এবং তা বিভিন্ন টেবিল স্পেসের আওতায় থাকে, যা আমরা গত আলোচনায় উল্লেখ করেছিলাম।

ইনডেক্স অর্গানাইজড টেবিল :

এখানে কী (Key) ভ্যালুর ওপরে ভিত্তি করে ডাটা সংরক্ষণ হয়ে থাকে। এর জন্য আলাদা করে লুকআপ টেবিলের প্রয়োজন হয় না। কারণ সব ডাটাই ইনডেক্স ট্রি থেকে সংগ্রহ হয়ে থাকে।



ক্রিয়েট টেবিল :

কোনো টেবিল আমাদের নিজেদের স্কিমাতে তৈরি করতে হলে অবশ্যই CREATE TABLE সিস্টেম প্রিভিলেজ থাকতে হবে। অন্য কোনো ইউজারের স্কিমাতে তৈরি করতে হলে অবশ্যই আমাদের CREATE ANY USER সিস্টেম প্রিভিলেজ থাকতে হবে। টেবিল তৈরির সময় খেয়াল রাখা প্রয়োজন যাতে টেবিলগুলো ভিন্ন ভিন্ন টেবিল স্পেসের আওতায় থাকে এবং ফ্রাগমেন্টেশনের হাত থেকে রক্ষা পাবার জন্য লোকালি ম্যানেজড টেবিল স্পেসের ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। নিচে hr স্কিমাতে emplyee টেবিল ক্রিয়েন্ট কিভাবে করা যাবে তা দেয়া হলো।

CREATE TABLE hr.employees (
employee_id NUMBER(6),
first_name VARCHAR2(20),
last_name VARCHAR2(25)
email VARCHAR2(25)
phone_number VARCHAR2(20)
hire_date DATE DEFAULT SYSDATE
job_id VARCHAR2(10)
salary NUMBER(8,2)
commission_pct NUMBER (2,2)
manager_id NUMBER(6)
department_id NUMBER(4)
) ;

টেম্পোরারি টেবিল :

যখন কোনো নিদিষ্ট সেশন অথবা ট্রানজেকশনের জন্য বিশেষ কোনো টেবিলের ক্ষেত্রে এই টেবিলের প্রয়োজন হয় তখন একে ব্যবহার করা হয়। এর বিশেষ সুবিধা হলো এতে কোনো ডিএমএল লক বরাদ্দ থাকে না এবং এর ওপর ভিত্তি করে ইনডেক্স, ডিউ এবং ট্রিগার তৈরি করা যায়। নিচে টেম্পোরারি টেবিল তৈরির কমান্ড দেয়া হলো।

CREATE GLOBAL TEMPORARY TABLE
hr.employees_temp
AS SELECT * FROM hr.employees;

রো মাইগ্রেশন এবং রো চেইনিং :

রো মাইগ্রেশন এবং রো চেইনিং বেশ বড় একটা সমস্যা। যখন PCTFREE-এর জন্য ভ্যালু কম নেয়া হয়, তখন কোনো আপডেট অপারেশন সংঘটিত হলে ডাটা ব্লকে অপর্যাপ্ত স্পেসের সম্ভাবনা দেখা দিতে পারে। এসব ক্ষেত্রে ওরাকল সার্ভার তার স্বয়ংক্রিয় প্রক্রিয়ায় সম্পূর্ণ রো-কে অন্য নতুন কোনো ব্লকে স্থানান্তর করবে, পুরনো জায়গায় ১টি পয়েন্টার স্থাপন করবে, যাতে তা নতুন স্থানকে নির্দেশ করতে পারে। একে বলা হয় রো মাইগ্রেশন। যখন কোনো রো মাইগ্রেন্ট হয় তখন ওই রো সংক্রান্ত ইনপু্ট/আউটপুট (আই/ও) পারফরমেন্স খারাপ হয়। কারণ এর ফলে ওরাকল সার্ভারকে অবশ্যই দুটি অপারেশন সম্পন্ন করতে হবে। রো চেইনিং তখনই সংঘটিত হবে যখন কোনো রো একটি ব্লকের চেয়ে বড় হবে। সাধারণত যখন কোনো রো বেশ বড় আকারের কলাম ধারণ করে তখনই রো চেইনিং বেশি দেখা যায়। এসব ক্ষেত্রে ওরাকল সার্ভার রো-কে ছোট ছোট অংশে বিভক্ত করে, যাকে বলা হয় রো পিস এবং প্রতিটি পিসকে আলাদা আলাদা ব্লকে রাখা হয়। আর ওই সব ব্লকে প্রয়োজনীয় পয়েন্টার স্থাপন করা হয়, যাতে একসাথে পুরো কলামকে রিট্রাইভ করা যায়। ডাটাব্লক সাইজ বড় নিলে এ সমস্যা দূর করা যায়।

ব্লক এবং স্টোরেজ ইউটিলাইজেশন প্যারামিটার পরিবর্তন :

নিচের কমান্ড প্রয়োগ করে ব্লক ইউটিলাইজেশন প্যারামিটার পরিবর্তন করা যায় :

ALTER TABLE hr.employees
PCTFREE 30
PCTUSED 50
STORAGE(NEXT 500K
MINEXTENTS 2
MAXEXTENTS 100);

উপরের কমান্ড প্রয়োগ করার ফলাফল :

NEXT :

যখন ওরাকল সার্ভার টেবিলের অন্য কোনো বরাদ্দ করবে তখন নতুন ভ্যালু হবে। পরবর্তী সাইজ PCT INCREASE অনুযায়ী বাড়বে।

PCT INCREASE :

এর যেকোনো পরিবর্তন ডাটা ডিকশনারিতে সন্নিবেশিত হয়। Next-এর পুনর্গণনার জন্য একে ব্যবহার করা যায় । একটি উদাহরণের মাধ্যমে আমরা ব্যাপারটা আরো সহজভাবে অনুধাবন করতে পারবো। ধরা যাক, কোনো টেবিলের দুইটি এক্সটেন্ট Next এবং PCT INCREASE যথাক্রমে 10k এবং 0k, যদি PCT INCREASE পরিবর্তন করে 100k করলে তৃতীয় এক্সাটেন্ট হবে 10kb, চতুর্থটি হবে 20kb, পঞ্চমটি হবে 40kb এবং এভাবেই পরবর্তীগুলো হতে থাকবে।



MINEXTENTS :

মান বর্তমান ভ্যালুর সমান অথবা কম যেকোনো সংখ্যক মানই হতে পারবে। তবে টেবিলের ওপর এর কোনো তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া ঘটে না। তবে TRANCATE হলে একে ব্যবহার করা হয়।

MAXEXTENTS :

বর্তমান এবং এর চেয়ে বেশি যেকোনো মান হতে পারে। এমনকি এর মান UNLIMITED হতে পারে।

নন-পার্টিশন টেবিল রিঅর্গানাইজেশন :


যখন কোনো নন-পার্টিশন টেবিলকে রিঅর্গানাইজড করা হয়, তখন এর স্টাকচার একই থাকে, তবে এর কোনো কনটেন্ট থাকে না। যখন কোনো টেবিলকে অন্য কোনো টেবিল স্পেসে স্থানান্তর অথবা রিঅর্গানাইজড করা হয় তখনই এর ব্যবহার হয়ে থাকে নিম্নরূপ। স্থানান্তরের পর এর কনটেন্ট আর দেখা যাবে না।

ALTER TABLE hr.employees
MOVE TABLESPACE data1;

ট্রানকেট টেবিল :

এর ফলে টেবিলের সব রো ডিলিট হয়ে যাবে এবং ব্যবহার হওয়া স্পেস ছেড়ে দেবে ও এর সাথে সম্পর্কিত ইনডেক্সও ট্রানকেট হয়ে যাবে।

TRUNCATE TABLE hr.employees;

ড্র্যাপ টেবিল :

যখন কোনো টেবিলের প্রয়োজন আর থাকে না অথবা একে রিঅর্গানাইজড করা হয়, তখন ওই টেবিলকে ড্রপ করা হয়। কমান্ড টেবিল ড্রপের পর এর সাথে সম্পর্কিত এক্সটেন্ট উন্মুক্ত হয়ে যায়। CASEADE CONSTRAINTS অপশনটি অবশ্যই প্রয়োজন, যদি ওই টেবিলটি প্যারেন্ট টেবিল হয় এবং এর সাথে অন্য টেবিলের ফরেন কী সম্পর্ক থাকে।

DROP TABLE hr.department
CASCADE CONSTRAINTS;

ড্রপ কলাম :

ড্রপ কলাম ওরাকলের একটি বিশেষ ফিচার। এর আগে ওরাকল ৮ ভার্সনে এই ফিচারটি উপস্থিত ছিল না। তবে এ কথা মনে রাখা দরকার যে, ড্রপ কলাম কমান্ড চালানোর জন্য সিস্টেমে বেশ বড় আকারের আনডু স্পেস প্রয়োজন। যেহেতু এর ফলে টেবিলের নির্দিষ্ট একটি কলামের সব ডাটা ডিলিট করতে হয়, তাই এটা সময়সাপেক্ষও বটে । CHECKPOINT বড় টেবিলের কলাম ড্রপের সময় আনডু স্পেসের ব্যবহার নিশ্চিত করে। CHECKPOINT প্রতি ১০০০ রো পর পর সংঘটিত হবে। ওই অপারেশন সংঘটনের সময় পর্যন্ত টেবিল INVALID স্ট্যাটাসে থাকে। যদি কোনো করণে এই অপারেশন চলার সময় ইনস্ট্যান্স ফেল করে টেবিল কিন্তু পরবর্তী স্টার্টআপের সময়ও INVALID থাকবে এবং ওই অপারেশন সম্পন্ন করবে।

ALTER TABLE hr.employees
DROP COLUMN comments
CASCADE CONSTRAINTS CHECKPOINT 1000;

টেবিল সংক্রান্ত তথ্য :

নিম্নের দুটি ভিউ থেকে টেবিল সংক্রান্ত তথ্য জানা যাবে।

01. DBA-TABLE
SELECT table_name FROM dba_tables WHERE owner = ‘HR’;
TABLE_NAME
—————————-
COUNTRIES
DEPARTMENTS
DEPARTMENTS_HIST
EMPLOYEES
EMPLOYEES_HIST
JOBS
JOB_HISTORY
LOCATIONS
REGIONS

02. DBA-Objects :
SQL> select object_name, created
2 from DBA_OBJECTS
3 where object_name like ‘EMPLOYEES’
4 and owner = ‘HR’;
OBJECT_NAME CREATED
—————- ————-
EMPLOYEES 16-APR-01

ইনডেক্স ব্যবস্থাপনা :

এটি ব্যাপকভাবে ব্যবহার হওয়া ডাটাবেজ যেখানে প্রতিনিয়ত ডাটা রিট্রাইভ করতে হয়। সেখানে ইনডেক্স ব্যবস্থাপনা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করা একজন ডিবিএ’র জন্য বেশ চ্যালেঞ্জিং কাজ। ইনডেক্স মূলত একটি ট্রি স্ট্রাকচার, যা কোনো টেবিলের নির্দিষ্ট রো-কে সরাসরি অ্যাক্সেস অনুমোদন করে। লজিক্যাল ডিজাইন অথবা ফিজিক্যাল ইমপ্লিমেনটেশনের ওপর ভিত্তি করে ইনডেক্সকে কয়েক ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে।

লজিক্যাল :

০১. সিঙ্গেল কলাম,
০২. ইউনিক/নন-ইউনিক,
০৩. ফাশংনভিত্তিক,
০৪. ডোমেইন।

ফিজিক্যাল :

০১. পার্টিশন/নন-পার্টিশন বি-ট্রি,
০২. পার্টিশন/নন-বিটম্যাপ।

লজিক্যাল ইনডেক্স অ্যাপ্লিকেশন পারস্পেকটিভ থেকে। অপরদিকে ফিজিক্যাল ইনডেক্স কোন প্রক্রিয়ায় ইনডেক্স সংরক্ষিত হবে তা নির্দেশ করে। এ আলোচনায় শুধু নন-পার্টিশন বি-ট্রি এবং ইনডেক্সের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখা হয়েছে।

বি-ট্রি ইনডেক্স :

মূলত সব ইনডেক্স বি-ট্রি স্টার ব্যবহার করে তবে বি-ট্রি ইনডেক্স টার্মটি একটি ইনডেক্স যা কিনা প্রতিটি কিয়ের ROWID (রোআইডি) ধারণ করে তার সাথে সম্পর্কিত।

বি-ট্রি ইনডেক্সের গঠন :

বি-ট্রি ইনডেক্স (চিত্র-১) থেকে দেখতে পাই এর তিনটি অংশ, যার সর্বোপরে রয়েছে রুট। মূলত রুটে থাকে তার পরবর্তী ধাপের পরবর্তী লেভেলের ব্লক এন্ট্রি অর্থাৎ লিফ এন্ট্রির নির্দেশিত পয়েন্ট। লিভ নোড ধারণ করে ইনডেক্স এন্ট্রি যা কোনো টেবিলের রো-কে নির্দেশ করে।

ইনডেক্স লিভ এন্ট্রির ফরমেট :

নিম্নলিখিত উপাদানের সমন্বয়ে ইনডেক্স লিভ এন্ট্রি গঠিত :

০১. এন্ট্রি হেডার : এর অভ্যন্তরে থাকে কলামের সংখ্যা এবং লকিংয়ের তথ্য।
০২. কী কলাম লেনথ : এটি ধারণ করে কী কলামের সাইজের তথ্য।
০৩. কী কলাম ভ্যালু : কী কলাম ভ্যালু ধারণ করে।
০৪. রোআইডি (ROWID) : রোয়ের আইডি ধারণ করে।

বিটম্যাপ ইনডেক্স :

বিটম্যাপ ইনডেক্স বি-ট্রি ইনডেক্সের মতোই গঠিত। কেবল এর লিফ নোড একটি বিটম্যাপ ধারণ করে রোআইডির পরিবর্তে। বিটম্যাপ প্রতিটি বিট প্রতিনিধিত্ব করে সম্ভাব্য রোআইডি-কে যদি বিটটি সেট হয় তবে ওই রোতে সম্পর্কিত রোআইডি কী ভ্যালু ধারণ করছে। চিত্রের বর্ণনা অনুযায়ী লিভ নোড নিম্নলিখিত জিনিস ধারণ করে।

০১. এন্ট্রি হেডার : কলাম সংখ্যা এবং লক সম্পর্কে তথ্য ধারণ করে।
০২. কী (Key) : প্রত্যেক কী কলামের আকার এবং মান ধারণ করে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, কী ধারণ করে শুধু একটি কলামকে এবং প্রথম এন্ট্রি হচ্ছে ব্লু।

বিটম্যাপ ইনডেক্সের গঠন :

স্টার্ট রোআইডির মধ্যে আছে ফাইল সংখ্যা তিন, ব্লক সংখ্যা দশ এবং রো সংখ্যা শূন্য। এন্ড রোআইডির মধ্যে আছে ব্লক সংখ্যা বারো এবং রো সংখ্যা আট।

বিটম্যাপ সেগমেন্ট :

এটি একটি বিটের স্ট্রিং ধারণ করে। যখন এই স্ট্রিংয়ের কোনো বিট সেট হয় তখনই ওই রো কী ভ্যালু ধারণ করবে আর আনসেট হবে যখন ধারণ করবে না।

বিটম্যাপ ও বি-ট্রি ইনডেক্স ব্যবহারের তুলনা :

যেসব ক্ষেত্রে ডাটাবেজ উচ্চহারে ব্যবহার করা প্রয়োজন যেমন- OLTP (অনলাইন ট্রানজেকশন প্রসেস) সমন্বিত সিস্টেমে বিটম্যাপ ইনডেক্স ব্যবহার করা হয়। অপরদিকে ডাটা ওয়ারহাউজ যেখানে জটিল সব কোয়ারি বড় এবং স্ট্যাটিক টেবিলে রান করে সেখানে বি-ট্রি ইনডেক্স ব্যবহার হয়।

বি-ট্রি ইনডেক্স নিম্নলিখিত কমান্ড রান করে করা যাবে :

CREATE INDEX hr.employees_last_name_idx
ON hr.employees(last_name)
PCTFREE 30
STORAGE(INITIAL 200K NEXT 200K
PCTINCREASE 0 MAXEXTENTS 50)
TABLESPACE indx;

বিটম্যাপ ইনডেক্স নিম্নলিখিত কমান্ড রান করে করা যাবে :

CREATE BITMAP INDEX orders_region_id_idx
ON orders(region_id)
PCTFREE 30
STORAGE(INITIAL 200K NEXT 200K
PCTINCREASE 0 MAXEXTENTS 50)
TABLESPACE indx

ইনডেক্সের স্টোরেজ প্যারামিটার পরিবর্তন (কমান্ড) :

ALTER INDEX employees_last_name_idx
STORAGE(NEXT 400K
MAXEXTENTS 100);

ইনডেক্সের স্পেস অ্যালোকেশন (কমান্ড) :

ALTER INDEX orders_region_id_idx
ALLOCATE EXTENT (SIZE 200K
DATAFILE ‘/DISK6/indx01.dbf’);

ইনডেক্সের স্পেস ডি অ্যালোকেশন (কমান্ড) :

ALTER INDEX orders_id_idx
DEALLOCATE UNUSED;

ইনডেক্সের মূল গঠন (কমান্ড) :

ALTER INDEX orders_region_id_idx REBUILD
TABLESPACE indx02;

ইনডেক্সকে ড্রপ করা (কমান্ড) :

DROP INDEX hr.deptartments_name_idx;

ইনডেক্স সংক্রান্ত তথ্য :

নিম্নলিখিত ভিউগুলো পর্যালোচনা করলে ইনডেক্সের বিভিন্ন তথ্য উদঘাটন করা যাবে :

DBA-INDEXES : ইনডেক্সের তথ্য জানা যাবে।
DBA-IND-COLUM : ইনডেক্স কলামের তথ্য জানা যাবে।
VOBJOCT-USA GC : ইনডেক্সের ব্যবহার জানা যাবে।

ডাটা ইন্টিগ্রিটি ব্যবস্থাপনা :

যেকোনো ডাটাবেজের ডাটা এর বিজনেস নিয়মে দৃঢ়ভাবে আটকে থাকাই হলো ইন্টিগ্রিটি। প্রধানত তিন প্রক্রিয়ায় ডাটা ইন্টিগ্রিটি নিশ্চিত করা হয়। ০১. application code, ০২. Database trigger, ০৩. Declarative integrity constraint। সিস্টেম ডিজাইনের ওপর ভিত্তি করে বিজনেস রুলের ম্যাপিং করা হয় এবং নির্ণয় করা হয় যেকোনো একটি পথ। এখানে ডিবিএ-কে শুধু ডিজাইনের মাধ্যমে পছন্দ করা মেথডকে বাস্তবায়নে নিয়োজিত থাকতে এবং ইন্টিগ্রিটি চাহিদার বিপরীতে সুষম পারফরমেন্স নিশ্চিত করতে হয়। অ্যাপ্লিকেশন কোড হয় ডাটাবেজের অভ্যন্তরে স্টোর প্রসিডিউরে অথবা ক্লায়েন্ট এন্ডে রানিং অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে প্রয়োগ করা হয়। অপরদিকে ডাটাবেজ ট্রিগার PL/SQL প্রোগ্রাম যা কিনা কোনো ইভেন্ট যেমন- ইনসার্ট, আপডেট কোন টেবিলে সংঘটিত হয় তখন ঘটে। তবে আলোচনায় ইন্টিগ্রিটি কনস্ট্যান্টের ওপর সীমাবদ্ধ রাখা হয়েছে।

ইন্টিগ্রিটি কনস্ট্যান্ট :

প্রধানত পাঁচ ধরনের কনস্ট্যান্ট আছে। যেমন- Not Null, Unique, primary check ইত্যাদি।

Not Null :

এর প্রয়োগের মাধ্যমে কোনো টেবিলের সব কলামে কোনো না কোনো মান নিশ্চিত করে। বাই ডিফল্ট সব কলামই Null ভ্যালুর উপস্থিতি অনুমোদন করে।

Unique :

এর মাধ্যমে একটি নির্দিষ্ট কলামের প্রতিটি এন্ট্রিকে স্বাতন্ত্র্য করা হয়। এর ফলে কোনো কলামের দুইটি রো-তে ডুপ্লিকেট ভ্যালু থাকতে পারে না।

Primary :

কোনো নির্দিষ্ট ডাটাবেজের একটি কলামে সর্বোচ্চ একটি Primary Key থাকতে পারে। এর ফলে নির্দিষ্ট কলামে দুইটি ডুপ্লিকেট ভ্যালু তিরোহিত হয় এবং কলামে কোনোভাবেই Null ভ্যালু ধারণ করবে না।

CHECK : এর মাধ্যমে কলামের সব ভ্যালুকে একটি শর্তের আওতাধীন থাকতে হয়।
FOREIGN KEY : একাধিক টেবিলের মধ্যে সম্পর্কের মাধ্যমে স্থাপন করা হয়। ফরেন কী অন্য কোনো টেবিলের প্রাইমারি কীর ওপর ভিত্তি করে সম্পর্ক তৈরি করে। ফরেন কী যে টেবিলে তৈরি হয় তাকে বলা হয় চাইল্ড টেবিল আর যে টেবিল প্রাইমারি কী ধারণ করে তাকে বলা হয় প্যারেন্ট টেবিল।

কনস্ট্রেইন্টের স্টেটসমূহ :

এর নিচের উল্লিখিত যেকোনো একটা অবস্থায় থাকতে পারে।

DISABLE NONVALIDATE :

এ অবস্থায় সার্ভার কনস্ট্রেইন্টকে চেক করবে না। এমনকি যদি কোনো নতুন ডাটা টেবিলে প্রবেশ করে অথবা আপডেট হয় তবেও কনস্ট্রেইন্ট এর রুল মানবে না।

DISABLE VALIDATE :

এ অবস্থায় কনস্ট্রেইন্টের কলামে কোনো মোডিফিকেশন সম্ভব হয় না। সর্বোপরি ওই কলামের ওপর ভিত্তি করা ইনডেক্স ড্রপ হয়ে যায় এবং কনস্ট্রেইন্ট ডিজ্যাবল হয়।

ENABLE NONVALIDATE :

এ অবস্থায় কোনো ডাটা কনস্ট্রেইন্ট রুল ভঙ্গ করে ডাটাবেজে প্রবেশ করতে পারবে না।

নিচের কমান্ড দিয়ে দেখানো হলো কিভাবে কনস্ট্রেইন্ট টেবিল ক্রিয়েশনের সময় ডিফাইন করা যায় :

CREATE TABLE hr.employee(
id NUMBER(7)
CONSTRAINT employee_id_pk PRIMARY KEY
DEFERRABLE
USING INDEX
STORAGE(INITIAL 100K NEXT 100K)
TABLESPACE indx,
last_name VARCHAR2(25)
CONSTRAINT employee_last_name_nn NOT NULL,
dept_id NUMBER(7))
TABLESPACE users;

নিচের কমান্ডগুলো দিয়ে দেখানো হলো কিভাবে কনস্ট্রেইন্টকে বিভিন্ন স্টেটে এনাবল করা যায় :

ALTER TABLE hr.departments
ENABLE [NOVALIDATE/ VALIDATE] CONSTRAINT dept_pk;

নিচের ভিউগুলো দিয়ে জানা যায় বিভিন্ন তথ্য :

• DBA_CONSTRAINTS
• DBA_CONS_COLUMNS

নিচের কমান্ড দিয়ে নাম টাইপ এবং স্ট্যাটাস জানা যায় (HR স্কিমার Emploee টেবিলের) :

SQL> SELECT constraint_name, constraint_type, deferrable,
2 deferred, validated
3 FROM dba_constraints
4 WHERE owner=’HR’
5 AND table_name=’EMPLOYEE’;
CONSTRAINT_NAME C DEFERRABLE DEFERRED VALIDATED
———————— - ———————- —————- —
EMPLOYEE_DEPT.. R DEFERRABLE DEFERRED VALIDATED
EMPLOYEE_ID_PK P DEFERRABLE IMMEDIATE VALIDATED
SYS_C00565 C NOT DEFERRABLE IMMEDIATE VALIDATED
3 rows selected.


কজ ওয়েব

ফিডব্যাক : lfthekhar@infobizsol.com
পত্রিকায় লেখাটির পাতাগুলো
লেখাটি পিডিএফ ফর্মেটে ডাউনলোড করুন
লেখাটির সহায়ক ভিডিও
চলতি সংখ্যার হাইলাইটস