Comjagat.com-The first IT magazine in Bangladesh
  • ভাষা:
  • English
  • বাংলা
হোম > শিফট ২-আনলিশড
লেখক পরিচিতি
লেখকের নাম: সৈয়দ হাসান মাহমুদ
মোট লেখা:১৪৩
লেখা সম্পর্কিত
পাবলিশ:
২০১১ - মে
তথ্যসূত্র:
কমপিউটার জগৎ
লেখার ধরণ:
গেম
তথ্যসূত্র:
গেমের জগৎ
ভাষা:
বাংলা
স্বত্ত্ব:
কমপিউটার জগৎ
শিফট ২-আনলিশড

নিড ফর স্পিড সিরিজের হট পারসুইট গেমটির আমেজ কাটতে না কাটতেই ইলেকট্রনিক আর্টস বাজারে নিয়ে এলো এ সিরিজের ১৭ তম সংযোজন শিফট ২-আনলিশড। হট পারসুইটের আগের গেমটি অর্থাৎ এনএফএস সিরিজের ১৫তম গেমটি ছিলো শিফট এবং সেই গেমটির ধারাবাহিকতা ও গেমপ্লের সাথে সামাঞ্জস্য রেখে আরো উন্নত করে বানান হয়েছে শিফট ২। হট পারসুইট গেমটি বানানো হয়েছিলো এ সিরিজের ষষ্ঠ গেমের সাথে মিল রেখে। যাতে রেসার এবং পুলিশ হিসেবে খেলার সুযোগ ছিলো এবং রেস খেলার স্থান ট্র্যাকের মধ্য সীমাবদ্ধ ছিলো না। কিন্তু শিফট গেমটি ট্র্যাক রেসিং ভিত্তিক যার সাথে এ সিরিজের প্রোস্ট্রিট গেমটির মিল আছে। শিফট গেমটিতে নতুন কিছু রেসিং স্টাইল এবং বাস্তবসম্মত গ্রাফিক্স ও গেমপ্লে বেশ নাম কামিয়েছিলো। কোডমাস্টারের বানানো ডার্ট ও রেস ড্রাইভার গ্রিডকে টেক্কা দেবার মতো গেম হিসেবে শিফটের আবির্ভাব ঘটেছিলো। গেমটির সাফল্যই গেমটির দ্বিতীয় পর্ব বের করার প্রেরণা যোগায় গেম নির্মাতাদের। শিফট সিরিজের ডেভেলপার হচ্ছে স্লাইটলি ম্যাড স্টুডিওস। চামেলেওন গেম ইঞ্জিনের সাহায্যে বানানো ক্রাইটেরিওন গেমসের ডেভেলপ করা হট পারসুইট গেমটি বেশি উত্তেজনাকর ছিলো, তবুও শিফট ২ কে কম উত্তেজনাকর বলা যাবে না। শিফট ২ বানাতে ব্যবহার করা হয়েছে দ্য ম্যাডনেস ইঞ্জিন যা গেমে ছড়িয়ে দিয়েছে অকল্পনীয় বাস্তবতা।



গেমটি সিঙ্গেল প্লেয়ার মোডের পাশাপাশি একসাথে ১২ জন অনলাইনে খেলার সুযোগ রয়েছে। সহজ কন্ট্রোলিংয়ের পরিবর্তে গেমে দেয়া হয়েছে রিয়েল টাইম ড্রাইভিং কন্ট্রোলিং যা নতুন গেমারদের কাছে বেশ কষ্টের মনে হতে পারে। তবে যারা প্রফেশনাল গেমার বা দক্ষ গেমার তাদের জন্য গেমটি অসাধারণ। অনলাইনে গেমটি খেলার সময় রেসিং গেমার হিসেবে নিজের যোগ্যতা ও অবস্থান যাচাই করার সুযোগ রয়েছে। গেমের রেসিং স্টাইলগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি হচ্ছে- ড্রিফটিং, মাসল কার রেসিং, রেট্রো কার রেসিং, এন্ডুরেন্স রেস, সারকুইট কমপিটিশন ইত্যাদি। গেমে ৩৬টি আলাদা রেসিং ট্র্যাক এবং ১৪৫টি গাড়ি ব্যবহার করা হয়েছে। পাগানি, এফওয়ান, বিএমডব্লিউ, মার্সিডিজ, পোরশে, ল্যাম্বোরগিনি, নিশান, অস্টন মার্টিন, অডি, শ্রেভ্রলে, ফেরারি, ফোর্ড, মাসেরাতি, আকুরা, মিতসুবিশি, আলফা রোমিও, বেন্টলি, ডজ, ফিয়াট, হোন্ডা, জাগুয়ার, কোয়েইনসেগ, লোটাস, লেক্সাস, সালেন, টয়োটা, রেনাউল্ট, ভলভো, ভক্সওয়াগন, রোলস রয়েস সহ মোট ৩৭টি ম্যানুফ্যাকচারারের গাড়ির দেখা মিলবে এ গেমে। হট পারসুইটে ব্যবহৃত অটোলগ নামের নিড ফর স্পিড স্যোশাল নেটওয়ার্কিং ফিচার আবার ফিরিয়ে আনা হয়েছে আরো উন্নতরূপে। গেমে নতুন সংযোজনের মধ্যে রয়েছে হেলমেটক্যাম এবং রাতের বেলায় রেস খেলার সুযোগ। গেমটি ফোরজা মোটরস্পোর্টস এবং গ্র্যান্ড টুরিজমো সিরিজের গেমের সাথেও বেশ পাল্লা দিয়ে গেম রেসিং গেমগুলোর মাঝে ভালো অবস্থান দখল করে নিয়েছে।

আগের শিফট গেমটি অনেকের পিসিতে চলার সময় সমস্যা করেছে। ভালো কনফিগারেশনের পিসিতেও গেমটি আটকে আটকে চলেছে। তবে নতুন এ গেমে তেমন কোনো সমস্যা নেই। গেমটি খেলার জন্য ইন্টেল কোর টু ডুয়ো সিরিজের ১.৮ গিগাহার্টজের প্রসেসর বা সমমানের এএমডির অথলন এক্সটু প্রসেসর, এক্সপির জন্য ১ গিগাবাইট ও ভিসতা/সেভেনের জন্য ২ গিগাবাইট র্যাথম, ২৫৬ মেগাবাইট মেমরির ডিরেক্ট এক্স ৯ সাপোর্টেড ও পিক্সেল শেডার ৩.০ সাপোর্টেড গ্রাফিক্স কার্ড, ডিরেক্টএক্স ৯ সাপোর্টেড সাউন্ড কার্ড এবং হার্ডডিস্কে প্রায় ৮ গিগাবাইট ফাঁকা জায়গা লাগবে। মাথায় হেলমেট লাগিয়ে ও কষে সিট বেল্ট বেঁধে নেমে পড়ুন চার চাকার বাহনের যুদ্ধে।


কজ ওয়েব

ফিডব্যাক : shmt_21@yahoo.com
পত্রিকায় লেখাটির পাতাগুলো
লেখাটি পিডিএফ ফর্মেটে ডাউনলোড করুন
লেখাটির সহায়ক ভিডিও
চলতি সংখ্যার হাইলাইটস