Comjagat.com-The first IT magazine in Bangladesh
  • ভাষা:
  • English
  • বাংলা
হোম > ওয়ার্ড ডকুমেন্টে চার্ট, গ্রাফিক্স ও ডায়াগ্রাম
লেখক পরিচিতি
লেখকের নাম: তাসনুভা মাহমুদ
মোট লেখা:১০২
লেখা সম্পর্কিত
পাবলিশ:
২০১৩ - অক্টোবর
তথ্যসূত্র:
কমপিউটার জগৎ
লেখার ধরণ:
ফিচার
তথ্যসূত্র:
পাঠশালা
ভাষা:
বাংলা
স্বত্ত্ব:
কমপিউটার জগৎ
ওয়ার্ড ডকুমেন্টে চার্ট, গ্রাফিক্স ও ডায়াগ্রাম
বর্তমান কমপিউটিং বিশ্বে সবচেয়ে জনপ্রিয় অ্যাপ্লিকেশন প্যাকেজ প্রোগ্রাম হলো মাইক্রোসফট ওয়ার্ড। ব্যবহারকারীদের ক্রমবর্ধমান চাহিদার প্রতি লক্ষ্য রেখে এ অ্যাপ্লিকেশনের ব্যাপক উন্নয়ন হচ্ছে অব্যাহতভাবে। এর ফলে ব্যবহারকারীরা প্রয়োজনে বর্তমানে তাদের ডুকমেন্টে চার্ট, গ্রাফিক্স, ডায়গ্রামসহ অনেক কিছুই যুক্ত করতে পারছেন। এর ফলে বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে চার্ট, গ্রাফিক্স ইত্যাদি যুক্ত করার জন্য অন্যান্য অ্যাপিস্নকেশনের প্রয়োজনীয়তাকেও দূর করতে পারছেন।

এ লেখায় ব্যবহারকারীদের উদ্দেশে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ২০০৭, মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ২০১০ এবং বিল্ট-ইন টুল ব্যবহার করে একটি ডকুমেন্টে চার্ট, গ্রাফিক্স, ডায়াগ্রাম ইত্যাদি যুক্ত করার কৌশল দেখানো হয়েছে। বিল্ডিং ব্লক টুল, যা ক্যুইক পার্টস হিসেবে পরিচিত তা ব্যবহার করে আপনি বাড়তি কম্পোনেন্ট ড্র্যাগ অ্যান্ড ড্রপ করতে পারবেন টেক্সটকে আকর্ষণীয় করার জন্য। যখন একটি দীর্ঘ জটিল ডকুমেন্ট তৈরি করতে যাবেন, তখন হয়তো আপনাকে চার্ট, গ্রাফিক্স, ছবি, ডায়াগ্রাম টেবল ও বুলেট ইত্যাদি যুক্ত করার প্রয়োজন হতে পারে। এ ধরনের ডকুমেন্ট তৈরিতে সহায়তা দেয়ার লক্ষ্য এ লেখার অবতরণা, যেগুলোকে একত্রে এক ডকুমেন্টে সমন্বিত করতে যেমন বেগ পেতে হয় ব্যবহারকারীকে, তেমনি এ কাজ বেশ সময়সাপেক্ষ ব্যাপারও বটে।
বিল্ডিং ব্লক এবং ক্যুইক পার্টস একই ফিচারের দুটি ভিন্ন নাম। এটি হলো আগে থেকে ডিজাইন করা সাধারণ ডকুমেন্টের কম্পোনেন্টের গ্যালারি, যা প্রয়োজনে ব্যবহার করা যেতে পারে খুব সহজে ডকুমেন্টে ড্রপ করার মাধ্যমে। ডকুমেন্টে চার্ট, গ্রাফিক্স, ছবি টেবল, ডায়াগ্রাম ইত্যাদি যুক্ত করার জন্য নিচে বর্ণিত ধাপগুলো সম্পন্ন করুন।

ধাপ-১ : মাইক্রোসফট ওয়ার্ড ২০০৭ বা ২০১০ চালু করে একটি আগে থেকে তৈরি করা ডকুমেন্ট ওপেন করুন কিংবা একটি নতুন ডকুমেন্ট তৈরি করম্নন। এটি বোঝার সুবিধার জন্য একটি ডামি ডকুমেন্ট তৈরি করুন, যেখানে থাকবে প্রচুর টেক্সট, কিছু ছবি, একসারি (রুলস) বুলেটেড লিস্ট এবং একটি চার্ট। এ ডকুমেন্টে আগে থাকবে হেডিং এবং ড্রপ ক্যাপিটাল। এ ডকুমেন্টকে ন্যূনতম পরিশ্রমে অধিকতর পরিপাটি করা যেতে পারে খুব সহজেই। আর এ ধরনের কাজের জন্য দরকার বিল্ডিং ব্লকস এবং ক্যুইক পার্টস নামের ফিচার। (চিত্র-১)।

ধাপ-২ : প্রথমে এ ডকুমেন্টে ফুটার যুক্ত করা যাক। ডকুমেন্টে ফুটার করা জন্য রিবন বারের Insert ট্যাবে ক্লিক করুন এবং Header & Footer খুঁজে বের করুন ও Footer-এ ক্লিক করুন। এবার ড্রপ ডাউন মেনু থেকে Alphabet footer-এ ক্লিক করার মাধ্যমে সিলেক্ট করুন। এবার রিবনে চেক করে নিশ্চিত হয়ে নিন যে Options প্যানেলে সেটিংয়ে ‘Different First Page’ অপশন টিক করা নেই। যদি টিক করা থাকে তাহলে টিক অপসারণ করুন ক্লিক করে। এরপর হয়তো আপনাকে আবার ফুটার ইনসার্ট করতে হতে পারে। এটি অনেকটা আকস্মিক গতি পরিবর্তনের মতো। ‘Type text’-এ ক্লিক করুন এবং কাঙ্ক্ষিত টেক্সট টাইপ করে আপনার ফুটারকে প্রতিস্থাপন করুন। (চিত্র-২)।

ধাপ-৩ : এবার ফুটার এরিয়া বন্ধ করার জন্য মূল টেক্সটের যেকোনো জায়গায় ডাবল ক্লিক করুন এবং ডকুমেন্ট জুড়ে স্ক্রল করুন। নতুন ফুটার প্রতি পেজে আবির্ভূত হবে। লক্ষ্যণীয়, এটি ধূসর বর্ণে হয়ে থাকে, যার অর্থ এ অবস্থায় এটি আর এডিট করা যাবে না। যদি ফুটারকে এডিট করতে চান, তাহলে ফুটার এরিয়ায় ডাবল ক্লিক করুন ফুটার এরিয়া ওপেন করার জন্য এবং প্রয়োজনীয় সম্পাদনার কাজ শেষ করুন। এরপর Insert ট্যাবে ক্লিক করুন এবং Header & Footer প্যানেল থেকে Header বেছে নিন। এরপর সিলেক্ট করুন Annual হেডার। ওয়ার্ড হেডারকে প্রতি পেজের ওপর ড্রপ করবে। হেডারও ফুটারের মতো ধূসর বর্ণের হয়ে থাকে। হেডারকে এডিট করতে চাইলে ডাবল ক্লিক করুন হেডার এরিয়া ওপেন করার জন্য। এরপর প্রয়োজনীয় সম্পাদনার কাজ শেষে টেক্সট এরিয়ায় ডাবল ক্লিক করুন। (চিত্র-৩)

ধাপ-৪ : হেডারে পেস্নসহোল্ডার টেক্সট পরিবর্তন করার পরিবর্তে কিছু কৌশল অবলম্বন করা হয়েছে এ লেখায়, যা পাঠকদের সামনে উপস্থাপন করা হয়েছে। এবার ওহংবৎঃ ট্যাবে আবার ক্লিক করুন। এবার ঈড়াবৎ চধমব বেছে নিন। কাভার পেজের লাইব্রেরি ওপেন হওয়ার পর সামান্য স্ক্রল ডাউন করুন এবং Stacks অপশন বেছে নিন। ওয়ার্ড ডকুমেন্টের শুরম্নতেই যুক্ত করে কাভার পেজ। এবার টাইটেল এবং সাবটাইটেলকে প্রতিস্থাপন করুন আপনার কাঙ্ক্ষিত টেক্সট দিয়ে। এরপর ঠরবট্যিাবে ক্লিক করে তড়ড়স ট্যাব খুঁজে বের করুন এবং ঞড়ি চধমব অপশন বেছে নিন। লক্ষ্যণীয়, ওয়ার্ড কাভার পেজ টাইটেল গ্রহণ করে এবং এটিকে প্রতি পেজের উপরে হেডার হিসেবে ব্যবহার করে। (চিত্র-৪)

ধাপ-৫ : এ পর্যমত্ম সম্পাদিত কাজ চমৎকার হলেও কিছু কাজ অসম্পূর্ণ রয়ে গেছে, কেননা এখানে উলিস্নখিত কাভার পেজে প্রয়োজনীয় (বছর) সংশিস্নষ্ট কোনো তথ্য সম্পৃক্ত করা হয়নি। এ তথ্য ফিক্স করার জন্য Insert ট্যাবে আবার ক্লিক করুন এবং বেছে নিন ‘Cover Page’ অপশন। এবার বেছে নিন Annual কাভার পেজ অপশন। এর ফলে ডেট সম্পৃক্ত হবে। আপনি ইচ্ছে করলে ড্রপডাউন ক্যালেন্ডার থেকেও ডেট আনতে পারেন। অনুরূপভাবে ডকুমেন্টটি কী উদ্দেশ্যে তৈরি করা হয়েছে সংক্ষেপে তার সারাংশ লেখার জন্যও স্পেস পাবেন। বাকি ডিটেইল পূর্ণ করলে ডেট ফিল্ড সম্পূর্ণ হবে এবং প্রতি পেজের উপরে থাকবে। (চিত্র-৫)

ধাপ-৬ : এ লেখায় যে হেডার, ফুটার এবং কাভার পেজ উপাদান যুক্ত করা হয়েছে, এর সবই হলো বিল্ডিং ব্লক এবং ক্যুইক পার্টসের অংশ। ওয়ার্ড এ টার্ম ইন্টারচেঞ্জেবলভাবে ব্যবহার করে। যদিও টেকনিক্যালি ক্যুইক পার্টস হলো এমন এক টুল, যা নিজস্ব বিল্ডিং ব্লক তৈরি করার জন্য ব্যবহার করা হয়। যদি আপনি Insert ট্যাবে ক্লিক করেন এবং টেবল, টেক্সট বক্স, পেজ নাম্বারসহ অনেক কিছুই দেখতে পারবেন বিভিন্ন ড্রপডাউন গ্যালারিতে। আপনি ইচ্ছে করলে নিজের পছন্দমতো করে তৈরি করতে পারবেন। যেমন আপনি এ ডকুমেন্টে Club Rules অংশ আবার ব্যবহার করতে চান। এ সেকশনে নেভিগেট করে Insert ট্যাবে ক্লিক করুন। এরপর Quick Parts সিলেক্ট করে Save Selection to Quick Part Gallery সিলেক্ট করম্নন। (চিত্র-৬)

ধাপ-৭ : প্রথম কয়েকটি হাইলাইট করা টেক্সটের ওপর ভিত্তি করে ওয়ার্ড বাই ডিফল্টভাবে বিল্ডিং ব্লকের একটি নাম দেয়। যদি এটি পছন্দ না হয়, তাহলে অন্য কিছু দিয়ে এটিকে সম্বোধন করুন। এ ডায়ালগ বক্সের সেটিংগুলো যেমন আছে তেমনই রেখে দিন। আপনি ইচ্ছে করলে একটি বর্ণনা টাইপ করতে পারন। তবে Ok-তে ক্লিক করার আগে Gallery ড্রপডাউন মেনু ওপেন করম্নন। এখানে আপনি যা দেখতে পারবেন, এর সবকিছুই সেভ করতে পারবেন পরে ব্যবহার করার জন্য। যেমন কাভার পেজ, হেডার ফুটার, টেবল ইত্যাদি। (চিত্র-৭)

ধাপ-৮ : এরপর Office বাটনে ক্লিক করম্নন (ওয়ার্ড ২০১০-এ এটি File ট্যাবে থাকে) এবং ঋরষব অপশন বেছে নিন। এরপর ঘবসিলেক্ট করে Blank Document বেছে নিন। Insert ট্যাব সিলেক্ট করা আছে কিনা তা নিশ্চিত করে Quick Parts বাটনে ক্লিক করুন। এর ফলে আপনি Club Ruleas লিস্ট দেখতে পারবেন, যা আগের ধাপে কপি করা হয়েছে। এটি এমন মেনুর ওপরে আবির্ভূত হবে এবং অবিকলের মতো প্রদর্শিত হবে। এটি ডকুমেন্টের বর্তমান টেক্সট কার্সর পজিশনে যুক্ত করতে চাইলে শুধু ক্লিক করলেই হবে। (চিত্র-৮)

ধাপ-৯ : ক্যুইক পার্টস ড্রপ ডাউন মেনুতে আপনি সব ধরনের আইটেম যুক্ত করতে পারবেন ঠিক ধাপ-৬ ও ধাপ-৭-এর মতো করে। উদাহরণস্বরূপ, এ লেখায় যুক্ত করা হয়েছে একটি চার্ট এবং একটি এরিয়াল ফটোগ্রাফ যেটি আমরা আবার ব্যবহার করতে পারি অন্য ক্ষেত্রে, যা অবশ্যই ডকুমেন্ট সংশ্লিষ্ট হতে হবে। বাই ডিফল্ট ক্যুইক পার্টস বর্তমান কার্সর পজিশনে ইনসার্ট হয়, তবে যদি আপনি কোনো একটিতে ডান ক্লিক করেন তাহলে এটি হেডার বা ফুটারে দেখা যাবে অথবা ডকুমেন্টের শুরুতে বা শেষে এটি দেখা যাবে। (চিত্র-৯)

ধাপ-১০ : একই মেনু থেকে আপনি ওপেন করতে পারবেন বিল্ডিং বস্নক অর্গানাইজার, যা ধারণ করে সব রেডি মেইড হেডার, ফুটার, টেক্সট বক্স, কাভার পেজ, টেবল এবং আরও অনেক কিছু, যেগুলো ওয়ার্ডের সাথে সম্পৃক্ত থাকে, যা কেউ নিজে নিজেই তৈরি করতে পারেন। এ লেখায় তৈরি করা একটি বিল্ডিং ব্লক সিলেক্ট করুন। এরপর এর বৈশিষ্ট্য পরিবর্তন করার জন্য হয় Edit Properties বাটনে ক্লিক করতে হবে অথবা Delete বাটনে ক্লিক করতে হবে তা অপসারণ করার জন্য। এ কাজ শেষ করে Close বাটনে ক্লিক করতে হবে। যদি ডকুমেন্ট শেষে বিল্ডিং বস্নকস সেভ করার জন্য প্রম্পট করে, তাহলে ণবং বেছে নিতে হবে আপনার নতুন সংযুক্ত ক্যুইক পার্টস স্টোর করার জন্য (চিত্র-১০)

ফিডব্যাক : mahmood_sw@yahoo.com
পত্রিকায় লেখাটির পাতাগুলো
লেখাটি পিডিএফ ফর্মেটে ডাউনলোড করুন
লেখাটির সহায়ক ভিডিও
চলতি সংখ্যার হাইলাইটস