Comjagat.com-The first IT magazine in Bangladesh
  • ভাষা:
  • English
  • বাংলা
হোম > ফেসবুক ডেটিং সার্ভিসে যেসব সুবিধা পাবেন
লেখক পরিচিতি
লেখকের নাম: মোখলেছুর রহমান
মোট লেখা:২
লেখা সম্পর্কিত
পাবলিশ:
২০১৮ - জুন
তথ্যসূত্র:
কমপিউটার জগৎ
লেখার ধরণ:
ইনটারনেট
তথ্যসূত্র:
ইন্টারনেট
ভাষা:
বাংলা
স্বত্ত্ব:
কমপিউটার জগৎ
ফেসবুক ডেটিং সার্ভিসে যেসব সুবিধা পাবেন
ফেসবুক ডেটিং সার্ভিসে যেসব সুবিধা পাবেন

বছরের পর বছর ধরে ফেসবুক তাদের ব্যবহারকারীদের বিভিন্ন নতুন নতুন ফিচার উপহার দেয়ার মাধ্যমে সব সময় কাছের একজন বন্ধু হওয়ার চেষ্টা করেছে, সাহায্য করেছে তাদের পুরনো বন্ধুদের খুঁজে পেতে এবং নতুন বন্ধু তৈরিতে। তবে বেশ কয়েক বছর পর এখন ফেসবুক সম্ভবত তার ব্যবহারকারীদের বন্ধুর চেয়েও আরো বেশি ঘনিষ্ঠ কাউকে খুঁজে পেতে সাহায্য করতে যাচ্ছে। কারণ, ফেসবুক এখন থেকে আপনাকে ‘সত্যিকারের ভালোবাসা’ খুঁজে পেতে সাহায্য করবে। এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি সম্প্রতি তাদের প্রথম এই ডেটিং ফিচারটি চালু করার ঘোষণা দেয় গত সপ্তাহের শুরুতে। ফেসবুক তাদের এফ-৮ ডেভেলপার্স কনফারেন্সে এই
নতুন ফিচারটির কথা ঘোষণা করে।

যারা এখনো সিঙ্গেল আছেন বা নতুন সম্পর্কের কথা ভাবছেন, তাদের জন্য এটা একটা সুখবরই বলা যায়। যারা এতদিন নিজের জীবনসঙ্গী বা ভালোবাসার মানুষকে খুঁজতে ঘটক ধরে শুধু টাকার অপচয় করে এসেছেন, তাদের জন্যই ফেসবুকের এই নতুন উপহার ‘ফেসবুক ডেটিং সার্ভিস’। ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠিয়ে বন্ধু হওয়া, তারপর কত শত চেষ্টায় সেই বন্ধুত্বকে ভালোবাসায় রূপান্তর করা। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে শুধু ফ্রেন্ড হিসেবেই ফেসবুকে যুক্ত থাকা, নয়তো একে অপরকে আনফ্রেন্ড বা বøক করে দেয়া। ফেসবুকে চলা সমসাময়িক ব্যর্থ ভালোবাসার গল্পগুলো প্রায় অনেকটা এরকমই। তবে হ্যাঁ, ফেসবুকের বন্ধুত্ব থেকে বাস্তব জীবনে জীবনসঙ্গী হওয়ার ঘটনাও কম নয়। আর ফেসবুকের মাধ্যমে প্রেম বা বিয়ে এখন আর কোনো অঘটনও নয়। আমরা প্রায়ই দেখি ফেসবুকের পরিচয় থেকে পাত্রপাত্রীর স্থান, কাল, পাত্র, দেশ, জাতি বা ধর্মের সীমা পেরিয়ে একে অন্যের কাছে ছুটে আসে। আর তাই তো এই পৃথিবী নামেরগ্রহের মানুষগুলোকে আরও কাছাকাছি নিয়ে সম্পর্কের বাঁধনে বাঁধার জন্যই ফেসবুকের এই নতুন সেবাÑ ফেসবুক ডেটিং সার্ভিস। চলুন এক নজরে দেখে নেয়া যাক ব্যবহারকারীদের জন্য কী কী সুবিধা থাকছে ফেসবুকের নতুন এই ফিচারে।

ফেসবুক ডেটিং সেবা কী?

আগে বিয়ের জন্য পাত্রপাত্রী খুঁজতে মানুষ কত পন্থা না অবলম্বন করত। এই ঘটক ধরা, নয়তো বন্ধুবান্ধব, আত্মীয়-স্বজন, পাড়া-প্রতিবেশী সবাই মিলে পাত্রপাত্রী খোঁজা। আর তাই তো এই ডিজিটাল যুগে জীবনসঙ্গী খুঁজতে ফেসবুক চালু করতে যাচ্ছে তাদের ডেটিং সেবা, যার মাধ্যমে মানুষ খুঁজে পাবে তার পছন্দের জীবনসঙ্গীকে।

গত ১ মে ফেসবুকের এফ-৮ ডেভেলপার কনফারেন্সে ফেসবুকের সহপ্রতিষ্ঠাতা মার্ক জুকারবার্গ ঘোষণা দেন ‘খুব শিগগির ফেসবুকে চালু হতে যাচ্ছে ডেটিং সেবা’।

‘ফেসবুকের এই সেবা হতে যাচ্ছে দীর্ঘস্থায়ী সত্যিকারের সম্পর্ক তৈরির অনন্য মাধ্যম, স্বল্প সময়ের শারীরিক সম্পর্কের (Hookups) জন্য এটা নয়’ ডেটিং সেবা সম্পর্কে এভাবেই ঘোষণা দেন মার্ক জুকারবার্গ।
ফেসবুক ডেটিং সেবা যেভাবে কাজ করবে?

যদিও মার্ক তার কোথাও ফেসবুকের ডেটিং সার্ভিস সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু বলেননি, কিন্তু পরে ফেসবুক তাদের ব্যগে ডেটিং সার্ভিস সম্পর্কে লিখেছে।
‘আমরা ডেটিং এবং স্থায়ী সম্পর্কের জন্য ফেসবুক অ্যাপ্লিকেশনে নতুন একটি সেবা সংযুক্ত করতে কাজ করে যাচ্ছি। মানুষ ইতোমধ্যেই ফেসবুকের মাধ্যমে নতুন মানুষের সাথে পরিচিত হচ্ছে আর আমরা এই অভিজ্ঞতাকে আরও সুন্দর করতে চাই। ফেসবুক ব্যবহারকারী তার জন্য একটি ডেটিং প্রোফাইল তৈরি করতে পারবে এবং অবশ্যই তা তাদের ফেসবুক প্রোফাইল থেকে আলাদা হবে এবং পারস্পরিক পছন্দ, অপছন্দ, মিল এবং পারস্পরিক বন্ধুদের ওপর ভিত্তি করে সম্ভাব্য জোড়া হিসেবে প্রস্তাব করা হবে। এই গ্রুপের মাধ্যমে নিজের সাথে সঙ্গীর পছন্দের মিল অনুসারে জীবনসঙ্গী খুঁজে পাওয়ার উপায় থাকবে। আর মানুষ ডেটিং সাইটে কী করছে না করছে তা তাদের ফেসবুক ফ্রেন্ডরা জানতে পারবেন না। এই বছরই পরীক্ষামূলকভাবে ডেটিং সেবা শুরু হওয়ার পর আরো বিস্তারিত তথ্য শেয়ার করা হবে।’

ফেসবুকে কেন ডেটিং সার্ভিস?

তবে ডেটিং ইন্ডাস্ট্রিতে ফেসবুকের প্রবেশকে অনেকেই খুব বেশি চমক হিসেবে নিচ্ছেন না। কিছুদিন আগের পিউ রিসার্চ সেন্টারের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, গড়ে ১৫ শতাংশ আমেরিকান তাদের জীবদ্দশায় ডেটিং সাইট ব্যবহার করেন এবং যেটা অন্য দেশগুলোতেও আনুপাতিক হারে বাড়ছে। সাম্প্রতিক অন্য আরেকটি গবেষণায় দেখা গেছে, ডেটিং ইন্ডাস্ট্রি গড়ে প্রতিবছর ৩ বিলিয়ন ডলার রেভিনিউ করে।

তাছাড়া এটা ভুললেও চলবে না যে, ফেসবুক দীর্ঘদিন ধরে মানুষের রোমান্টিক সম্পর্কের সাথে ভার্চুয়ালি জড়িয়ে আছে। আর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ‘রিলেশনশিপ স্ট্যাটাস’ এখন বিশ্বব্যাপী নতুন প্রজন্মের কাছে এতটাই জনপ্রিয় আর জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে উঠেছে যে,ফেসবুকের নতুন এই ডেটিং ফিচার তাদের জন্য নিঃসন্দেহে অন্যরকম পাওয়া।

এখন যারা রিলেশনশিপ স্ট্যাটাসে কমপ্লিকেটেড ব্যবহার করছে সম্পর্কের জটিল অবস্থায়, তারা যদি নতুন ফিচারে এভাবে প্রকাশ করে যে ‘ডেটিং চলছে’ অথবা ‘ভালোবাসায় যাচ্ছে দিন’ সেটা হয়তো ফেসবুকের জন্য ভালোই হবে।

ফিচারটি ফেসবুকের অ্যাপেই ব্যবহার করা যাবে

হ্যাঁ, এটি ফেসবুক থেকে নতুন আলাদা কোনো অ্যাপ নয়। এই ফিচারটি ফেসবুকের নিজস্ব অ্যাপেই থাকবে, যাতে ব্যবহারকারীরা ফেসবুক ছেড়ে যেতে না পারে এবং এটি ব্যবহার করার জন্য তাদের ভিন্ন কোনো অ্যাপ খুলতে না হয়। এটি ফেসবুকে ব্যবহারকারীদের আরো বেশি সময়কাটানোকে উৎসাহিত করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

কী কী সুবিধা মিলবে এই নতুন ফিচারে

ফেসবুকের নতুন এই ‘ডেটিং’ ফিচারটি মূলত যারা সিরিয়াস সম্পর্ক তৈরি করতে চান, তাদের কথা ভেবেই তৈরি করা হয়েছে, যেমনটি এফ-৮ ডেভেলপার কনফারেন্সে কোম্পানিটির অধিকর্তারা উল্লেখ করেছেন।
তবে যেহেতু ফেসবুক এখনো ডেটিং সার্ভিসটি চালু করেনি এবং এ সম্পর্কে বিস্তারিত প্রকাশ করেনি, তাই স্বভাবতই আমাদের মনে নানা প্রশ্ন উঁকি দিচ্ছে, যার ভেতরে সবচেয়ে বড় তিনটি প্রশ্ন হলো

০১. আপনার ডেটিং তথ্য নিরাপদ থাকবে
তবেফেসবুক জানিয়েছে ডেটিং সার্ভিসের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ফেসবুকের নিজস্ব নিরাপত্তা ব্যবস্থার অনুরূপ থাকবে। তাই যদি হয়, তাহলে কিছুদিন আগে যে ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা কেলেঙ্কারি হলো, একইভাবে আপনার নিজের জীবনের একান্ত কিছু তথ্য যদি অন্য কেউ হাতিয়ে নেয়, সেটা অবশ্য ভালো কিছু হবে না। তাই ফেসবুককে তাদের ব্যবহারকারীর ব্যক্তিগত তথ্যের নিরাপত্তা ব্যবস্থার আরও উন্নতি করতেই হবে।

০২. আপনার বন্ধুবান্ধব এবং পরিবারের কতটুকু জানবে?
মারকের কথা আর ফেসবুকের ঘোষণা অনুযায়ী ডেটিং সেবা আপনার ফেসবুক প্রোফাইল থেকে আলাদা হবে। ফলে আপনার জন্য ফেসবুকে ঠিক তেমন সম্ভাব্য সঙ্গী খুঁজে বের করবেন যাদের সাথে পারস্পরিক পছন্দ, অপছন্দ, মিল এবং পারস্পরিক বন্ধুদের যোগাযোগ বা মিউচুয়াল ফ্রেন্ড থাকবে। তাই আপনার এই প্রোফাইল সম্পর্কে কে জানবে আর কে জানবে না, সে সম্পর্কে আরও বিস্তারিত হয়তো এখনই বলা সম্ভব নয়। বন্ধু, সহকর্মী বা পরিবারের কেউ জানবে কিনা এটা হয়তো আপনাকেই ঠিক করতে হবে।

০৩. ঠিক কাদের জন্য এই নতুন সেবা?
ফেসবুক জানিয়েছে, অনলাইনে আরও যেসব ডেটিং সাইট আছে তার থেকে ফেসবুক ডেটিং সেবার বিস্তর ফারাক থাকবে। অন্য ডেটিং সাইটে মানুষ শুধু কিছু সময় কাটানোর জন্যই হয়তো যায়, কিন্তু ফেসবুকের পরিকল্পনা হচ্ছে মানুষকে চিরস্থায়ী বা দীর্ঘ সময়ের জন্য সম্পর্কে আবদ্ধ হতে উদ্বুদ্ধ করা। তাই বলা যায়, এটা হয়তো তাদের জন্য, যারা আশপাশে অল্প পরিসরে খুঁজে খুঁজে হয়রান হয়েছেন তাদের জন্য জীবনসঙ্গী খোঁজার ভালো বিকল্প উপায় হতে পারে।

কবে থেকে এটি ব্যবহার করা যাবে?

ফেসবুক এই সার্ভিসটি কবে থেকে ব্যবহারকারীদের জন্য অবমুক্ত করে দেয়া হবে, সে বিষয়ে এখনও পর্যন্ত নির্দিষ্ট কোনো তারিখ ঘোষণা করেনি। যাই হোক, তবে এটি নিশ্চিত যে, এই ফিচারটি এ বছরের শেষ নাগাদ আসবে।

সূত্র: গেজেটস নাউ
পত্রিকায় লেখাটির পাতাগুলো
লেখাটির সহায়ক ভিডিও
২০১৮ - জুন সংখ্যার হাইলাইটস
চলতি সংখ্যার হাইলাইটস