Comjagat.com-The first IT magazine in Bangladesh
  • ভাষা:
  • English
  • বাংলা
হোম > কমপিউটিং জীবনে প্রয়োজনীয় কিছু অ্যাপ
লেখক পরিচিতি
লেখকের নাম: আনোয়ার হোসেন
মোট লেখা:৬৬
লেখা সম্পর্কিত
পাবলিশ:
২০১৮ - মে
তথ্যসূত্র:
কমপিউটার জগৎ
লেখার ধরণ:
অ্যাপ
তথ্যসূত্র:
অ্যাপ
ভাষা:
বাংলা
স্বত্ত্ব:
কমপিউটার জগৎ
কমপিউটিং জীবনে প্রয়োজনীয় কিছু অ্যাপ
কমপিউটিং জীবনে প্রয়োজনীয় কিছু অ্যাপ
আনোয়ার হোসেন

প্রতিদিন মুক্তি পাওয়া সব অ্যাপ ট্র্যাক করা খুব কঠিন। এমনকি ভালোদের মধ্যে ভালো অ্যাপ চিহ্নিত করাও বেশ কঠিন। কঠিন এই কাজকে সহজ করার জন্য বরাবরের মতোই সম্প্রতি মুক্তি পাওয়া কিছু অ্যাপ সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে।

ওটটের

ওয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করে টেক্সট করার পাশাপাশি কল করার সুবিধা ভোগ করে এর ব্যবহারকারীরা। অনেক সময় দেখা যায় ভুল করে ভুল মেসেজ পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে ভুল মানুষকে। এ রকম ক্ষেত্রে একবার মেসেজ পাঠানোর পর তা আর ফিরিয়ে আনার কোনো সুযোগ না থাকায় অনেক সময়ই বিব্রতকর অবস্থার মুখোমুখি না হয়ে কোনো উপায় ছিল না। এ ধরনের অবস্থায় পড়া ব্যবহারকারীরা ভাবতেন এমন কোনো প্রযুক্তি থাকলে কেমন হতো, যার সাহায্যে ভুল করে কোনো মেসেজ পাঠানো তা আবার রিকল করা সম্ভব হবে। এতে সম্ভাব্য বিব্রতকর পরিস্থিতির মুখোমুখি হওয়া থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। ওয়াটসঅ্যাপের নতুন যুক্ত হওয়া ফিচার ব্যবহার করে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কোনো মেসেজ ভুল করে পাঠিয়ে থাকলে সেটি রিকল করা বা মুছে ফেলা যাবে। এর সাহায্যে দুই অ্যান্ড মানে উভয় পাশ থেকেই ভুল করে পাঠানো এসএমএস মুছে ফেলা যায়। এখন আপনি যদি কোনো ডিলিট হওয়া ফাইল, এসএমএস বা ছবি পুনরুদ্ধার করতে চান, তাহলে কি উপায় হবে? এর সমাধান পাওয়া যাবে এ অ্যাপটিতে।
আবার জরুরি কোনো সভার পর আলোচনার বিষয়গুলো মনে রাখা বা সেগুলোর ওপর ভিত্তি করে কোনো সিদ্ধান্তে আসা কঠিন হয়ে পড়ে যদি আলোচনার বিষয়গুলোই ঠিকমতো মনে রাখা না যায়। ক্লাসের লেকচার, কোনো ভিডিও কনফারেন্স, ইন্টারভিউ, ফোনকলের ক্ষেত্রেও একই বিষয় প্রযোজ্য। এসব ক্ষেত্রে বিষয়বস্তু মনে রাখতে পারলে পরবর্তী সময় সে অনুযায়ী কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করাও অসম্ভব হয়ে পড়ে। এ সমস্যার সমাধান হতে পারে বিভিন্নভাবে। যদি কেউ আপনার হয়ে কোনো সভা, ফোনকল বা ক্লাস লেকচার রেকর্ড করে দেয়ার পাশাপাশি তা লিখে দেয়। তবে আর কোনো ভাবনা নেই। সেই রেকর্ড বা লিখিত কনটেন্ট দেখে অবস্থা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া যায়। ওটটের নামের এই অ্যাপটি হতে পারে এর সমাধান। এটি একটি নোট নেয়ার অ্যাপ, যা একই সাথে কথোপকথন মনে রাখা, খোঁজা এবং শেয়ারের কাজ করে দেবে। তবে এখন পর্যন্ত অ্যাপটি শুধু ইংরেজি ভাষায় ব্যবহারের জন্য। তবে আশা করা যায়, এর উদ্যোক্তারা খুব শিগগিরই অন্যান্য ভাষায় অ্যাপটি ব্যবহারে সুবিধা নিয়ে আসবে।

ম্যাসেঞ্জার হোম

ম্যাসেঞ্জার হোম একটি অ্যান্ড্রয়িড লঞ্চার অ্যাপ। নাম থেকেই অনুমান করা যাচ্ছে এটি একটি ম্যাসেজিং অ্যাপ। এতে আরও কিছু ফাংশন আছে। তবে মূল ফোকাসটি এসএমএস মেসেজিংয়ের ওপর। এসএমএস মেসেজিংয়ের জন্য অ্যাপটিতে একটি ডেডিকেটেড স্ক্রিন আছে। এতে আছে কিছু লাইট কাস্টোমাইজড ফিচার, তিন হাজারেরও বেশি ইমোজিসহ আরো কিছু। অ্যাপটি একদিকে যেমন নিরাপদ তেমনি এটি ব্যবহার করাও বেশ সহজ। ব্যবহারকারী একটি মাত্র সোয়াইপের মাধ্যমে তার সব মেসেজে প্রবেশ করতে পারবে। আবার পৃথক সেন্ডারের জন্য কাস্টম কালারের আইকন ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে। অ্যাপটির মাধ্যমে খুব দ্রæত মেসেজ অ্যাক্সেস করা যায়। এমনকি একটি স্ক্রিনেই দেখা যাবে সব মেসেজ। এর আরেকটি ফিচার হচ্ছে ভয়েজ টু টেক্সট। যার সাহায্যে খুব সহজেই অডিও কনটেন্টকে টেক্সটে রূপান্তর করা যাবে।

গুগল ওপিনিয়ন রিওয়ার্ড

গুগল প্লে স্টোরে বেশিরভাগ অ্যাপ ফ্রিতে পাওয়া গেলেও প্রিমিয়াম অ্যাপ ব্যবহারের জন্য অবশ্যই অর্থ ব্যয় করতে হবে। এমন কোনো অ্যাপ নেই যেক্ষেত্রে এ ব্যাপারটি উল্টো ঘটবে। একেবারে যে নেই তা নয়। গুগল ওপিনিয়ন রিওয়ার্ড নামের অ্যাপটি ব্যবহারের মাধ্যমে অর্থ আয়ের সুযোগ আছে। বলা যায়, অ্যাপ ব্যবহারে আবার সাথে কিছু অর্থ আয়ের ঘটনা বেশ বিরল। এই অ্যাপে ব্যবহারকারীকে গুগল পরিচালিত বিভিন্ন সার্ভে বা জরিপে অংশ নিতে হবে। সেসব সার্ভেতে অংশ নেয়ার বিনিময়ে গুগল পুরস্কারস্বরূপ ক্রেডিট প্রদান করে। প্রাপ্ত ক্রেডিট দিয়ে স্টোর থেকে কোনো কিছু কেনা যাবে। একটি সার্ভেতে অংশ নেয়ার মাধ্যমে ০.৬০ পাউন্ড পর্যন্ত ক্রেডিট পুরস্কার পাওয়া যায়। আর সার্ভেগুলোও তেমন শক্ত কিছু নয়। উদাহরণস্বরূপ সার্ভেতে প্রশ্ন করা হতে পারে, ‘কোন লোগোটি দেখতে সুন্দর’, ‘কোন প্রমোশনটি বেশি কার্যকর বলে আপনি মনে করেন’ অথবা ‘পরের বার আপনি কবে ভ্রমণে যাবেন’ ইত্যাদি। অ্যাপটি ডাউনলোড করার পর ব্যবহারকারীকে তার নিজের সম্পর্কে কিছু বেসিক তথ্য দিতে হবে। তারপর গুগল থেকে মোটামুটি সপ্তাহে একটি করে সার্ভে পাঠানো হবে। তবে গুগল জানিয়েছে, সার্ভে পাঠানোর এ সময়টি একেবারে নির্ধারিত এমন কিছু নয়। এ সময় কমবেশি হতে পারে। মানে আরো অল্প সময়ের ব্যবধানে বা কখনো কখনো আরও কিছু সময় পর সার্ভে আসতে পারে। ব্যবহারকারীর সাথে সম্পৃক্ত কোনো সার্ভে থাকলে নোটিফিকেশনের মাধ্যমে তা জানিয়ে দেয়া হবে।

জিবোর্ড

জিবোর্ডকে বলা হয় অ্যান্ড্রয়িডের আল্টিমেট কিবোর্ড। এটি বলার অবশ্য বেশ কিছু কারণও আছে। এতে আছে দারুণ কিছু ফিচার, যেগুলো আসলে অন্যান্য কিবোর্ড থেকে আনা হয়েছে। অন্যদের সবচেয়ে ভালো ফিচারগুলো একত্রে হাজির করার কারণে স্বাভাবিকভাবেই এটিকে আল্টিমেট কিবোর্ড বলা হচ্ছে। এতে আছে বিল্টইন গুগল সার্চ সুবিধা। তার মানে চ্যাট করার সময় কোনো প্রয়োজনে ব্রাউজার ওপেন করার দরকার হবে না। ধরা যাক, আপনি চ্যাট করছেন এমন সময় আপনার মিটিংয়ের লোকশন শেয়ার করার দরকার পড়ল। সেক্ষেত্রে আগে চ্যাট বন্ধ করে ব্রাউজার ওপেন করার প্রয়োজন হতো। এখন আর সেই বিরক্তিকর কাজটি করতে হবে না। চ্যাট উইন্ডো খোলা অবস্থায়ই সার্চ করার কাজ সেরে নেয়া যাবে। তারপর সার্চ রেজাল্ট সরাসরি সেন্ড করে দেয়া যাবে। সার্চ ছাড়া আরও কিছু চমৎকার ফিচার আছ এই অ্যাপটিতে। চ্যাট করা অবস্থায় স্টিকার, ইমোজি বা জিআইএফ সার্চ করে পাঠানো যাবে। ভয়েজ টাইপিং জিবোর্ড অ্যাপটির একটি গুরুত্বপূর্ণ ফিচার। এর মাধ্যমে অডিও কনটেন্ট থেকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে টাইপ করে নেয়া যাবে। কোনো গুরুত্বপূর্ণ মিটিং, সেমিনার বা আলোচনার অডিও শুনে টাইপ করার ঝক্কি আর পোহাতে হবে না। শুধু যা করতে হবে তা হচ্ছে অ্যাপটির ভয়েজ টাইপিং অপশনটি চালু করে দিলেই হবে।
পত্রিকায় লেখাটির পাতাগুলো
লেখাটির সহায়ক ভিডিও
২০১৮ - মে সংখ্যার হাইলাইটস
চলতি সংখ্যার হাইলাইটস